বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘জল্লাদখানার জায়গাটিকে শিশুদের জন্য ও এলাকাবাসীর জন্য বিনোদনের জায়গা হিসেবে রূপান্তর একটি অভূতপূর্ব সাফল্য। এটি একটি উদাহরণ। ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় অবস্থিত ছোট ছোট জায়গাকে স্বল্প পরিসরে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীবান্ধব খেলার জায়গা হিসেবে গড়ে তোলা আরও সহজ হবে। পাড়ায় পাড়ায় কানাগলি, ফুটপাত ও রাস্তাগুলোকে খেলার মাঠ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

গণপরিসরটি যেখানে হয়েছে, সেটি উত্তর সিটির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মধ্যে পড়েছে। এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক বলেন, শিশুবান্ধব গণপরিসরটি এলাকাবাসীর মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে।

এই গণপরিসর পাবলিক-প্রাইভেট অংশীদারত্বের অধীনে গড়ে তোলা হয়েছে। এর নেতৃত্বে ছিল উত্তর সিটি করপোরেশন। এতে সহযোগিতা করে ইউএন হ্যাবিটেট, নগর গবেষণা কেন্দ্র (সিইউএস), ভূমিজ লিমিটেড, বার্জার বাংলাদেশ লিমিটেড, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে ভূমিজ লিমিটেডের পক্ষে প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফারাহানা রশীদ বলেন, এ রকম জনগণের অংশীদারত্ব প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গণপরিসর উন্নয়নের শুরু হতে যুক্ত থেকে বাস্তবায়ন করতে পারাটা সৌভাগ্যের। তবে এর জন্য এখন দরকার সুষ্ঠু পরিচালনা ব্যবস্থাপনা।

অনুষ্ঠান শেষে মেয়র আতিকুল ইসলামসহ অতিথিরা চত্বরে বৃক্ষ রোপণ করেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন