মিয়ানমারেরর পাঠ্যক্রমের ভিত্তিতে পাইলট প্রকল্প হিসেবে পরিচালিত এই শিক্ষাক্রমটি প্রাথমিকভাবে ষষ্ঠ থেকে নবম গ্রেডের ১০ হাজার শিশুকে প্রাধান্য দিয়ে চালু করা হচ্ছে। সাধারণত ১১ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুরা ষষ্ঠ থেকে নবম গ্রেডের আওতায় পড়ে। তবে বাস্তবে অনেক রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশুই শিক্ষায় পিছিয়ে পড়েছে। এ কারণে ষষ্ঠ থেকে নবম গ্রেডে ভর্তি হওয়া বেশির ভাগ শিশুর বয়স ১৪ থেকে ১৬ বছর। এদের মধ্যে বয়সের দিক থেকে কেউ কিছুটা ছোট আবার কেউ কিছুটা বড়। ইউনিসেফের উদ্দেশ্য, পর্যায়ক্রমে এই পাঠ্যক্রমের বিস্তার ঘটানো। যাতে ২০২৩ সালের মধ্যে সব স্কুল-বয়সী শিশু মিয়ানমারের পাঠ্যক্রমের মাধ্যমেই শিক্ষা লাভ করতে পারে।

ইউনিসেফের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনেক অগ্রগতি সত্ত্বেও প্রায় এক লাখ স্কুল-বয়সী রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশু স্কুলে যাচ্ছে না। ইউনিসেফ ও উন্নয়ন অংশীদাররা এই শিশুদের কাছে পৌঁছাতে এবং তাদের স্কুলে যাওয়ার পথে যেসব প্রতিবন্ধকতা কাজ করে, সেগুলো দূর করতে চেষ্টা করছে।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি শেলডন ইয়েট বলেন, ‘এই শিশুদের আশা দেওয়ার জন্য, তাদের শিক্ষা দেওয়ার জন্য, তাদেরকে অনাগত ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করার জন্য আমাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করতে হবে। প্রতিটি রোহিঙ্গা শিশুর মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে ইউনিসেফ রোহিঙ্গা সম্প্রদায়, বাংলাদেশ সরকার এবং অংশীদারদের সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাবে।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন