বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, গত সোমবার রাতে পুলিশ ইব্রাহীমের ভাড়া করা বাসায় গেলে তিনি বাসা থেকে বের না হয়ে উসকানিমূলক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার করেন। অজ্ঞাতনামা আসামিদের সহায়তায় আসামি মুফতি ইব্রাহীম ফেসবুক, ইউটিউবে মিথ্যা, উসকানিমূলক ও ভীতি প্রদর্শক তথ্য প্রচার করেন। এ বিষয়ে আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। ভিডিওতে প্রচারিত বক্তব্য নিজের বলেও দাবি করেন। পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে মুফতি কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে। মোহাম্মদপুর থানায় গতকাল মঙ্গলবার রাতে এই মামলা হয়।

এ ছাড়া প্রতারণার অভিযোগে মুফতি ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে জেড এম রানা নামের এক ব্যক্তি মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা করেছেন। প্রথম আলোকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন মোহাম্মদপুর থানার পরিদর্শক মো. আবুল কালাম।

গত সোমবার রাতে রাজধানীর লালমাটিয়ার বাসা থেকে মুফতি ইব্রাহীমকে আটক করে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) একটি দল। পরে মুফতি ইব্রাহীমকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন