default-image

হেফাজত নেতা মাওলানা জসিম উদ্দিনের ওপর হামলার মূল পরিকল্পনাকারীদের পরিচয় প্রকাশের দাবিতে আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ, লালবাগ অঞ্চল।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ৯ ফেব্রুয়ারি বিকেল পাঁচটায় নিজ কর্মস্থল লালবাগ জামেয়া কোরানিয়া আরাবিয়া থেকে বাসায় ফেরার পথে হামলার শিকার হন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ও লালবাগ জামেয়ার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা জসিম উদ্দিন। লালবাগ থেকে রিকশায় উঠে কিছু দূর যেতেই পেছন থেকে দৌড়ে এসে পিঠে ছুরিকাঘাত করেই পালিয়ে যায় হামলাকারী। ঘটনার এক দিন পর নিজেই বাদী হয়ে লালবাগ থানায় একটি হত্যাচেষ্টা মামলা করেন মাওলানা জসিম উদ্দিন।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিরা বলেন, ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধারকৃত সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, হামলাকারী টার্গেট করে শুধু মাওলানা জসিম উদ্দিনকে ছুরি মারার উদ্দেশ্যেই সেখানে আসে। ফুটেজে ধরা পড়া হামলাকারীর এক সহযোগীকে এক দিন পর পুলিশ গ্রেপ্তার করলে তিনি জানান, তাঁরা বেশ কয়েক দিন ধরেই মাওলানা জসিমের ওপর হামলার জন্য তাঁকে অনুসরণ করছিলেন।

বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে নেতারা বলেন, প্রশাসন ও স্থানীয় জনগণের ভাষ্যমতে, হামলাকারী একজন পেশাদার খুনি। টাকাপয়সার বিনিময়ে তিনি এ ধরনের কন্ট্রাক্ট নিয়ে থাকেন। এলাকায় এ কাজের জন্য তিনি পরিচিত। পরশু শেষরাতে হামলাকারীকে দক্ষিণখান থেকে গ্রেপ্তার করে লালবাগ থানার পুলিশ। বিভিন্ন গণমাধ্যমে গ্রেপ্তারের খবর এসেছে। কিন্তু এক সপ্তাহ পেরিয়ে যাওয়ার পরও মূল হোতাদের পরিচয় প্রকাশ করতে পারেনি পুলিশ প্রশাসন। হামলাকারীকে গ্রেপ্তারের পরদিন আদালতে তোলা হলেও রহস্যজনকভাবে রিমান্ডের আবেদন করা হয়নি।

বাংলাদেশ হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মুসা বিন ইজহার বলেন, কোনো অদৃশ্য শক্তির ইশারায় মাওলানা জসিম উদ্দিনকে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারীদের বাঁচিয়ে দেওয়ার প্রচেষ্টা মেনে নেওয়া হবে না। অনতিবিলম্বে হত্যার প্রচেষ্টাকারী মূল হোতাদের পরিচয় প্রকাশ করা না হলে তৌহিদি জনতাকে দমিয়ে রাখা যাবে না। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃত্বে সারা দেশে আন্দোলনের দাবানল ছড়িয়ে পড়বে।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরের সহসভাপতি মাওলানা যুবায়ের আহমদ, মাওলানা বশিরুল হাসান, মহানগর নেতা মাওলানা সাইফুল্লাহ হাবিবী, মাওলানা নাসির উদ্দিন, মাওলানা ফরহাদ, মাওলানা সানাউল্লাহ খান প্রমুখ।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন