default-image

রাজধানী পরিচ্ছন্ন রাখতে নগরবাসীর সচেতনতার ওপর জোর দিচ্ছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। তাঁর ভাষ্য, বর্জ্য বাইরে ফেলে তার জন্য আবার কর্তৃপক্ষকে দোষ দিলে কাজ হবে না।

আজ শুক্রবার সকালে মোহাম্মদপুর ঈদগাহ মাঠে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বিডি ক্লিনের পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচিতে অংশ নেন মেয়র। বিডি ক্লিনের ১ হাজার ৮০০ স্বেচ্ছাসেবী সারা দিন ডিএনসিসির ৩১ নম্বর ওয়ার্ড এলাকার ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করছে।

মেয়র আতিকুল বলেন, ‘আমরা নিজের ঘরটা পরিষ্কার রাখি, আর ময়লাটা ফেলে দিই বাইরে। সকালে দোকান খোলার পরই সব ময়লা ফেলে দেওয়া হয় করপোরেশনের নালায়। কিন্তু কেন আমরা এগুলো করছি? কার জন্য করছি? আপনারা ময়লা ফেলে দেবেন বাইরে, আর বিডি ক্লিন রাস্তা পরিষ্কার করবে, এটা হতে পারে না।’

বিজ্ঞাপন

মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন আবাসিক এলাকার দুই ভবনের মাঝে ফেলে দেওয়া ময়লা-আবর্জনার উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, মেথর প্যাসেজে সবাই ময়লা ছুড়ে ফেলে। সিটি করপোরেশন একাধিকবার সেই ময়লা পরিষ্কার করে দিয়েছে। তারপরও ময়লা ফেলা হয়। তারা ময়লা ফেলে দেবে, সেখানে মশা হবে, আর নগরবাসী গালি দেবে সিটি করপোরেশনকে; এটা হতে পারে না।’

বিডি ক্লিন যেভাবে শহর পরিষ্কার করে, তা থেকে শিক্ষা নিয়ে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বক্তব্যের একপর্যায়ে মেয়র আতিকুল বলেন, কোনো ধরনের চাপে তিনি মাথা নত করবেন না। এই প্রতিজ্ঞা তিনি এবং ডিএনসিসির কাউন্সিলররা করেছেন।

গত মঙ্গলবার উত্তরার খিদির খাল থেকে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ নিয়ে তিনি বলেন, খালের জায়গা দখল করে থাকা অবৈধ দখলদারকে তাৎক্ষণিক বুলডোজার ও খননযন্ত্রে উচ্ছেদ করা হয়েছে। ভরাট খাল খনন করে দেওয়া হয়েছে। আজ এই খাল জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে।

মুজিব বর্ষ উপলক্ষে সিটি করপোরেশন প্রতিটি জন্মসনদের সঙ্গে একটি গাছের চারা উপহার দেবে বলে ঘোষণা দেন মেয়র। তিনি বলেন, প্রত্যেক সন্তানের নামে অভিভাবকেরা যদি একটি করে গাছ লাগান, তাহলে এই ঢাকা শহরে আর অক্সিজেনের অভাব হবে না।

বিডি ক্লিনের পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ঢাকা-১৩ আসনের সাংসদ সাদেক খান, ডিএনসিসি ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর এবং মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন