বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আরিফুলের মামাতো ভাই মো. সুজন জানান, সাতারকুলে মা ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ গ্রিল অ্যান্ড ওয়েল্ডিং নামের একটি দোকান রয়েছে আরিফুলের। পাশের একটি নতুন দোকানে কাজ করছিলেন তিনি ও জাহাঙ্গীর। দোকানের মেঝে থেকে লোহার পাইপ ওপরে তোলার সময় সেটি বৈদ্যুতিক তারের সংস্পর্শে আসে। এতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তাঁরা। পরে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন।

আরিফুল সাতারকুল এলাকার বাসিন্দা। তাঁর বাবার নাম মো. আবুল হোসেন। তাঁর স্ত্রী ও এক ছেলে রয়েছে। আর জাহাঙ্গীরের বাড়ি নবাবগঞ্জের বক্তারনগরে। তাঁর বাবার নাম আবদুল কুদ্দুস বিশ্বাস।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান, লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন