বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাড্ডা থানার এসআই গোলাম মোস্তফা বলেন, যে দুজন গরু চুরির সঙ্গে জড়িত, তাঁরা ডগরদিয়ায় বসবাস করেন। চুরিসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ রয়েছে তাঁদের বিরুদ্ধে।

এদিকে আজ আল মুমিন ও ওমর সানিকে পাঁচ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন জানায় বাড্ডা থানা-পুলিশ। আদালত রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

চুরি যাওয়া গরুর মালিক জাবেদা বেগমের বড় ছেলে অপু রায়হান প্রথম আলোকে বলেন, গরু চুরির সঙ্গে জড়িত ওমর সানি টিকটকে ভিডিও বানান। গত বছরও গরু চুরির সময় ধরা পড়েন তিনি। পরে এলাকার লোকজন গণপিটুনি দিয়েছিলেন। অপু জানান, বাড্ডার ছোট বেরাইদ এলাকায় তাঁদের মতো আরও অনেকে গরু পালন করেন।

অবশ্য আসামি আল মুমিন ও ওমর সানির পক্ষ থেকে আদালতের কাছে দাবি করা হয়েছে, গরু চুরির সঙ্গে তাঁরা জড়িত নন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন