বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন (নৌ রুট পারমিট, সময়সূচি ও ভাড়া নির্ধারণ) বিধিমালা, ২০১৯–এর বিধি ২৭ মোতাবেক সরকার নৌযানে যাত্রী পরিবহনের জন্য প্রতি কিলোমিটার সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন যাত্রীপ্রতি ভাড়া পুনর্নির্ধারণের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির সুপারিশের আলোকে বিআইডব্লিউটিএর প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে ভাড়া পুনর্নির্ধারণ করল।

গতকাল রোববার বিকেল পৌনে চারটার দিকে মতিঝিলের বিআইডব্লিউটিএ কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে লঞ্চমালিকদের দুটি সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের বৈঠক শুরু হয়। কয়েক ঘণ্টার আলোচনা শেষে ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছায় উভয় পক্ষ।

পরে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক সাংবাদিকদের জানান, ৩৫.২৯ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। এতে লঞ্চভাড়া ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত ১ টাকা ৭০ পয়সার পরিবর্তে ৬০ পয়সা বৃদ্ধি করে ২ টাকা ৩০ পয়সা ও ১০০ কিলোমিটারের ঊর্ধ্বের জন্যও ৬০ পয়সা বৃদ্ধি করে ১ টাকা ৪০ পয়সার পরিবর্তে ২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। জনপ্রতি সর্বনিম্ন ভাড়া ১৮ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৫ টাকা করা হয়েছে।

শনিবার ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে ভাড়া বাড়ানোর দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথে লঞ্চ চালাবেন না বলে ঘোষণা দেয় সাধারণ লঞ্চমালিকেরা। তবে লঞ্চমালিকদের সংগঠনের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি।

শুক্রবার রাতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থা থেকে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের কাছে ভাড়া শতভাগ বৃদ্ধির প্রস্তাবের চিঠি পাঠানো হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন