বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ১ সেপ্টেম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়ে এই অ্যাসোসিয়েশন বলে, ১ তারিখ থেকে চালু না হলে নিজ দায়িত্বে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালুর সিদ্ধান্ত নেবে। এ ছাড়া দাবি না মানা হলে কর্মসূচি দেবে তারা।

কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব জি এম জাহাঙ্গীর কবির বলেন, প্রাথমিক শিক্ষায় বাংলাদেশের যে সাফল্য, তার প্রায় অর্ধেক অবদান কিন্ডারগার্টেনের। কিন্ডারগার্টেন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আট লাখ যুবক উদ্যোক্তা হয়ে বেকারত্ব দূর করেছেন বলে দাবি করেন এই নেতা।

মানববন্ধনে নেতারা বলেন, একে একে সব খুলে দেওয়া হলেও ১৮ মাস ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এই সময়ে কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকেরা মানবেতর জীবন কাটিয়েছেন। অনেকেই পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে এই শিক্ষকেরা জীবিকা নির্বাহ করতে চান। বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশন বলে, সরকারের কোনো আর্থিক সুবিধা বা সহযোগিতা তারা পায়নি। শিক্ষামন্ত্রী তাঁদের খোঁজ নেয়নি দাবি করে মন্ত্রীকে অযোগ্য বলে আখ্যায়িত করে এই সংগঠন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন