default-image

পল্লবীতে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে ১২ বছরের এক শিশু। এই ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে আজ রোববার চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পল্লবী থানা-পুলিশ।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা অপরাধের কথা শিকার করেছে।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আলী প্রথম আলোকে বলেন, শিশুটি দুদিন আগে নোয়াখালী থেকে ঢাকায় এসেছে। বিচ্ছেদের পর মেয়েটির বাবা-মা দুজনেই আলাদা সংসার করছেন। মেয়েটি নোয়াখালী থেকে বাবার কাছে থাকতে এসেছিল।

ওসি বলেন, গতকাল শনিবার রাতে বাবা বকা দিলে বাসা ছেড়ে বেরিয়ে যায়। একসময় বুঝতে পারে সে হারিয়ে গেছে। একটা দোকানের পাশে বসে সে কাঁদতে থাকে। তখনই বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে এক যুবক তাকে মেসে নিয়ে যায়। পথেই আরও দু-একজনকে খবর দেয়। এরপর তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের আগে শিশুটিকে ঘুমের ওষুধ খাওয়ানো হয়েছিল। রোববার সকালে ঘুম থেকে উঠে শিশুটি বুঝতে পারে সে নির্যাতনের শিকার। কেউ একজন তাকে থানায় নিয়ে যায়। এরপরই পুলিশ আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করে।

এলাকায় নতুন হওয়ায় ঘটনাস্থল খুঁজে পেতে বেগ পেতে হয় বলে জানান ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী। পরে সাদা পোশাকে পুলিশ শিশুটিকে নিয়ে পল্লবীর ওই মেসটিকে শনাক্ত করে। মেসের মালিক মিন্টুসহ পরে একে একে চারজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়।
শিশুটির বাবাকেও খুঁজে পেয়েছে পুলিশ। রোববারই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0