বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাহামুদ হোসেন বলেন, অভিযোগ গঠনের শুনানির সময় আসামি জাকির ও আয়েশা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। দুদকের পক্ষে জামিনের বিরোধিতা করে আদালতে বক্তব্য তুলে ধরা হয়। উভয় পক্ষের শুনানি নিয়ে আদালত আসামিদের জামিন মঞ্জুর করেন। একই সঙ্গে মামলায় আদালত তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

৪ কোটি ৬৩ লাখ ১৩ হাজার ৩০০ টাকার সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর জাকির ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। তদন্ত শেষে গত ২২ ফেব্রুয়ারি তাঁদের বিরুদ্ধে দুদক আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে গত বছরের ২৯ অক্টোবর ভোলা থেকে গ্রেপ্তার হন জাকির।

জাকিরের বিরুদ্ধে মামলার এজাহারে বলা হয়, অনুসন্ধানের সময় বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে চলতি, সঞ্চয়ী ও এফডিআর হিসাবে জাকিরের প্রায় ৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকা জমা আছে। এ ছাড়া ২০১৮-১৯ কর বর্ষে তিনি আয়কর নথিতে ৮৪ লাখ ৯৫ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য দিয়েছেন। কিন্তু দুদকের অনুসন্ধানে তাঁর মোট ৫ কোটি ৪৯ লাখ ৩ হাজার টাকা অর্জনের সুনির্দিষ্ট কোনো উৎস পাওয়া যায়নি।

এজাহারে আরও বলা হয়, ক্যাসিনোসহ বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসা থেকে জাকিরের অবৈধ আয়ে দেশ ও দেশের বাইরে জাকিরের বিপুল সম্পদ অর্জনের তথ্য দুদকের কাছে আছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন