গত সোমবার ও মঙ্গলবার নিউমার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের সময় বিভিন্ন গণমাধ্যমের অন্তত ১৩ জন সাংবাদিক আহত হয়েছেন। তাঁদের কয়েকজনকে ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা মারধর করেন। কেউ কেউ পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাসের শেল ও সংঘর্ষে লিপ্ত দুই পক্ষের ছোড়া ইটের আঘাতে আহত হন।

মানববন্ধনে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকে ন্যক্কারজনক বলে উল্লেখ করেন ঢাকা কলেজ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি এ জেড ভূঁইয়া আনাস। তিনি বলেন, শুধু নিউমার্কেটেই নয়, এর আগেও বিভিন্ন সময় বিবদমান পক্ষগুলো সাংবাদিকদের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছে। সাংবাদিকদের ওপর নির্যাতনের বিচার না হওয়ায় দুষ্কৃতকারীরা বারবার হামলার সাহস পাচ্ছে। নিউমার্কেট এলাকায় সাংবাদিকদের ওপর হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। প্রয়োজনে দ্রুত বিচার আদালত গঠন করে এর বিচার করতে হবে।

সমিতির সাবেক সভাপতি নাজমুস সাকিব বলেন, ‘নিউমার্কেট এলাকায় সংঘর্ষে ঢাকা কলেজের অনেক ছাত্র আহত হয়েছেন। এখানে সাংবাদিকদের ওপরও আক্রমণ হয়েছে। সাংবাদিকদের ওপর হামলার মাধ্যমে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর আঘাত করা হয়েছে বলে আমরা মনে করি।’ তিনি বলেন, ‘সাংবাদিকদের ওপর বারবার হামলা হলেও সুষ্ঠু বিচার হচ্ছে না। নিউমার্কেট এলাকায় সাংবাদিকদের ওপর হামলার অবিলম্বে বিচার করতে হবে।’

নিউমার্কেটে সংঘর্ষের সময় ছাত্র ও ব্যবসায়ী—উভয় পক্ষই সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেছে বলে অভিযোগ করেন সমিতির সাবেক সহসভাপতি ও বাংলাভিশনের বিশেষ প্রতিবেদক কেফায়েত শাকিল। তিনি বলেন, সংঘর্ষে সাংবাদিকেরা ছিলেন নিরপেক্ষ, তাঁরা চেয়েছেন সংঘাতের দ্রুত সমাধান। কিন্তু পুলিশের সামনেই সাংবাদিকদের ওপর হামলা করা হয়েছে। পুলিশ সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় কাউকে মামলার আওতাভুক্ত করেনি, এমনকি চিহ্নিত করার চেষ্টাও করেনি।

কেফায়েত শাকিল আরও বলেন, ‘শুধু পুলিশ নয়, গণমাধ্যমের পক্ষ থেকেও কেউ মামলা করতে যাননি। এটা গণমাধ্যম কর্তৃপক্ষ, সাংবাদিক সংগঠন—সবারই ব্যর্থতা। নিউমার্কেটে সাংবাদিকদের ওপর হামলার সুষ্ঠু বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে; যাতে এমন ঘটনা বন্ধ হয়। তা না হলে আমরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হব।’

ঢাকা কলেজ সাংবাদিক সমিতির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নাজমুল সাঈদ বলেন, ‘নিউমার্কেটে সংঘর্ষের সময় অসংখ্য সংবাদকর্মীকে টার্গেট করে হামলা করা হয়েছে। অতীতেও নানা আন্দোলনে এমন ঘটনা ঘটেছে। কারও পক্ষে না গেলেই সাংবাদিকদের টার্গেট করা হয়। মানুষের মধ্যে একটা সাধারণ ধারণা তৈরি হয়েছে যে সাংবাদিকদের ওপর নির্যাতনের কোনো বিচার হয় না। এ কারণেই বারবার হামলা হচ্ছে।’

ঢাকা কলেজ সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল হাকিমের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে সংগঠনের সাবেক সভাপতি বিল্লাহ হোসেন বক্তব্য দেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন