বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ৩১ জানুয়ারি সিনহা হত্যা মামলার রায় দেন কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ আদালত। রায়ে টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ ও পরিদর্শক মো. লিয়াকত আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।

এ ছাড়া রায়ে টেকনাফ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দদুলাল রক্ষিত ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ও সাগর দেবসহ ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। সাজার বিরুদ্ধে দণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা উচ্চ আদালতে আপিল করেছেন।

দণ্ডাদেশপ্রাপ্তদের মধ্যে রুবেল শর্মা ও সাগর দেবের করা আপিলের গ্রহণযোগ্যতার ওপর গতকাল মঙ্গলবার শুনানি হয়। আদালতে আসামিপক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আমিনুল ইসলাম।

শিশির মনির প্রথম আলোকে বলেন, যাবজ্জীবন সাজার বিরুদ্ধে রুবেল শর্মা ও সাগর দেবের করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বিচারিক আদালতের রায়ে তাঁদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা দেওয়ার আদেশ স্থগিত করা হয়েছে।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের তৎকালীন পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন সিনহা মো. রাশেদ খান। এ ঘটনায় হত্যা মামলা করেন সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস।

ওই বছরের ৫ আগস্ট আদালতে করা মামলায় ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ পুলিশের ৯ সদস্যকে আসামি করা হয়। গত বছরের ২৭ জুন প্রদীপসহ ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে মামলার বিচার শুরু হয়। অভিযোগপত্রে থাকা ৮৩ সাক্ষীর মধ্যে ৬৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন আদালত।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন