default-image

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণার পর দাফনের আগমুহূর্তে নড়েচড়ে ওঠা শিশুটির অবস্থা সংকটাপন্ন। সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নবজাতক ইউনিটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রেই (আইসিইউতে) চিকিৎসাধীন রয়েছে। চিকিৎসকেরা বলছেন, শিশুটিকে সুস্থ করে তুলতে তাঁরা আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন।

এদিকে কন্যাশিশুটির নাম রেখেছেন তার বাবা ইয়াসিন মোল্লা। মরিয়ম নামে তিনি নবজাতককে ডাকছেন।

বিজ্ঞাপন

গত শুক্রবার ভোর পৌনে পাঁচটায় কন্যাশিশুটির জন্ম হয়েছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরপরই চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হাসপাতাল থেকে দেওয়া হয় মৃত্যুসনদ। বাবা ইয়াসিন শিশুটিকে নিয়ে যান আজিমপুর কবরস্থানে। সেখানে দাফনের খরচ পোষাতে না পেরে শিশুটিকে নিয়ে যান রায়েরবাজার কবরস্থানে। কবর খোঁড়ার কাজ চলছিল তখন। এমন সময় শিশুটি নড়েচড়ে ওঠে, শুরু করে কান্নাকাটি। এরপর শিশুটিকে নিয়ে আবার ঢাকা মেডিকেলে ছুটে আসেন ইয়াসিন। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের নবজাতক ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক মণীষা ব্যানার্জি প্রথম আলোকে বলেন, মায়ের গর্ভে অন্তত ২৮ সপ্তাহ থাকলে শিশুর বাঁচার ভালো সম্ভাবনা থাকে। এই শিশু ২৫-২৬ সপ্তাহেই জন্মেছে। তার ওজনও কম, ৯০০ গ্রাম। এর মধ্যে তাঁরা তাকে একটু দেরিতে পেয়েছেন। অবস্থা সংকটাপন্ন হলেও তাঁরা সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মন্তব্য পড়ুন 0