default-image

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)-এর অভিযানে আজ সোমবারও ঢাকা-৭ আসনের সাংসদ হাজী মোহাম্মদ সেলিমের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। আজ তাঁর মালিকানাধীন মদিনা ট্যাংকের একটি গুদাম ও একটি গ্যারেজ উচ্ছেদ করা হয়। তবে দুর্ঘটনার ঝুঁকি এড়াতে সাংসদের ফিলিং স্টেশনের অবৈধ অংশ উচ্ছেদ করা হয়নি। তবে স্থাপনাটি সরিয়ে নিতে সময় দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।

আজ সোমবার পুরান ঢাকার চকবাজার থানাধীন কামালবাগ ও ইসলামবাগে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ। এ দিন হাজী সেলিমের গুদামসহ ১৭১টি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এতে উদ্ধার হয় নদীর দুই একর জমি।

এর আগে গতকাল রোববার ইমামগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাংসদ হাজী সেলিমের মালিকানাধীন একটি স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয় বিআইডব্লিউটিএ। একই দিন সোয়ারীঘাট এলাকায় তাঁর আরেকটি স্থাপনাও ভেঙে দেওয়া হয়। তবে অভিযানের আগে সোয়ারীঘাট এলাকার ওই স্থাপনার কিছু অংশ নিজের লোকজন দিয়ে ভেঙেছিলেন হাজী সেলিম।  

বিজ্ঞাপন

সোমবার বিকেল চারটার দিকে ইসলামবাগ এলাকায় হাজী সেলিমের মালিকানাধীন মদিনা ফিলিং স্টেশনের দখলে থাকা অংশ উদ্ধার করতে গিয়ে কিছুটা জটিলতায় পড়েন অভিযানকারীরা। ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালালে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে তাই সেটা না ভেঙে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এটি সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা দেন। পরে ফিলিং স্টেশনের ভেতরে থাকা গাড়ি পরিষ্কারের একটি ঘরের অবৈধ অংশ উচ্ছেদ করা হয়। ফিলিং স্টেশনের পাশে থাকা সাংসদের মালিকানাধীন একটি গুদামও গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

এর আগে বেলা ১১টায় কামালবাগ এলাকা থেকে অভিযান শুরু করে সংস্থাটি। অভিযানের শুরুতেই উচ্ছেদ না করতে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে অভিযান থমকে যায়। নদীর জায়গা গড়ে তোলা স্থাপনার মালিকদের কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা এনে দেখান। পরে বেশ কয়েকটি স্থাপনায় হাত দেয়নি সংস্থাটি। উচ্চ আদালত থেকে স্থগিতাদেশ আনা স্থাপনাগুলো স্থায়ীভাবে নির্মিত বহুতল ভবন।

এরপর নদীর জায়গায় থাকা বাকি স্থাপনাগুলোতে অভিযান চালায় বিআইডব্লিউটিএ। আজ যেসব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে তার বেশির ভাগই টিনের তৈরি অস্থায়ী স্থাপনা ছিল। এসব অস্থায়ী স্থাপনার কয়েকটি ছিল তিন থেকে চার তলা পর্যন্ত। অভিযান শুরুর আগে সেখানে থাকা লোকজনে সরিয়ে দেওয়া হয়। বিআইডব্লিউটিএ’র অভিযানের কারণে বেলা ১১টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল।

বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক ও ঢাকা নদী বন্দরের নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা গুলজার আলী প্রথম আলোকে বলেন, উচ্ছেদ না চালানোর জন্য উচ্চ আদালতের নির্দেশনার কারণে কয়েকটি স্থাপনায় অভিযান চালানো সম্ভব হয়নি। তবে আইনগতভাবে মোকাবিলা করে এসব স্থাপনায়ও পরিবর্তীতে অভিযান চালানো হবে।

আজকের অভিযানে নেতৃত্ব দিয়েছেন বিআইডব্লিউটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুব জামিল। আরও উপস্থিত ছিলেন বিআইডব্লিউটিএর উপপরিচালক শাহজাহান সিরাজ, সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন