হাতে বইয়ের ব্যাগ বাড়ছে

বিজ্ঞাপন
default-image

পারিজাত প্রকাশনীর সামনে যেতেই গলায় পত্রিকার পরিচয় দেখে মোহাম্মদ শাওন বলে উঠলেন, ‘আমাদের তো কয়েকটা নতুন বই এসেছে। নাম দেবেন না?’

‘দেব। বইয়ের নাম বলেন।’

তাঁর আগেই বই হাতে এগিয়ে আসেন আনিকা। বলেন, ‘আমেরিকাপ্রবাসী লিজি রহমানের ওহ আমেরিকা বইটি দেখুন। আর সৈয়দ আবুল হোসেনের বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু।’

পাশের মনন প্রকাশন এনেছে মমতাজউদ্দীন আহমদ আমার শিক্ষক নামের বইটি। 

অন্বেষা প্রকাশন এরই মধ্যে এনেছে ৭০টির মতো বই। আরও ১০টি আসবে। রোমেন রায়হানের ডাক্তার তুই পালিয়ে যা, কিঙ্কর আহসানের মেঘডুবি চলছে ভালো, এমনটাই জানালেন আশিক আহমেদ। 

দিব্যপ্রকাশ থেকে এ পর্যন্ত এসেছে ছয়টি বই। এর মধ্যে আছে নাইল কিশটাইনির অর্থনীতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস এসেছে কাজী মাহবুব হাসানের অনুবাদে। এম আতহার আলীর লেখা ঔরঙ্গজেবের সময়ে মুঘল অভিজাতশ্রেণী এসেছে অরুণ কুমার দের অনুবাদে।

পুথিনিলয় এখন পর্যন্ত এনেছে চারটি বই। এর মধ্যে আছে আবুল কাসেম ফজলুল হকের জাতীয়তাবাদ আন্তর্জাতিকতাবাদ বিশ্বায়ন ও ভবিষ্যৎ, প্রণব মজুমদারের সুখ দুঃখের পদাবলি। দীর্ঘদিন অর্থনীতি বিষয়ে সাংবাদিকতা করছেন এই কবি। বহুদিন পর আবার কবিতার সঙ্গে মিতালি পাতিয়েছেন তিনি। কথাগুলো জানালেন জাকিয়া সুলতানা।

default-image

ভাষাচিত্র এনেছে নতুন ১৩টি বই। আবু হাসান শাহরিয়ারের নোনা ব্যঞ্জনার শিলালিপি, হাসান তারেক চৌধুরীর সময় বিজ্ঞান ও অনুভবে, গিয়াস আহমেদের চন্দ্রযান দ্য লুনাটিক এক্সপ্রেস।

মঙ্গলবার যে বেঞ্চির কাছে আজমির পড়ছিল টুনটুনির বই, সেখানেই দেখা পাওয়া যায় তুবা তাবাসসুমের। মায়ের সঙ্গে এসে অনেকগুলো বই কিনেছে সে। মুহম্মদ জাফর ইকবালের প্রজেক্ট আকাশলীন, শান্তনু চৌধুরীর বড় মেজ ছোট তার হাতে।

হ্যাঁ, হাতে বইয়ের ব্যাগের সংখ্যা বাড়ছে মেলায়।

গতকাল মেলার ১১তম দিনে ১৫৪টি নতুন বই এসেছে। মেলায় প্রথমা প্রকাশন এনেছে মতিউর রহমান সম্পাদিত ১৯৭১: শত্রু ও মিত্রের কলমে, শিশির ভট্টাচার্য্যের যা কিছু ব্যাকরণ নয়। এ ছাড়া মেলায় আগামী প্রকাশনী এনেছে আল মাসুমের ছড়ার বই আপত্তি সত্ত্বেও।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন