বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গত শনিবার থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। আজ সকাল আটটা থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়। আজ বিক্রি হচ্ছে ২৯ এপ্রিলের টিকিট।

রাজধানীর কমলাপুর স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে কাউন্টারগুলোয় টিকিটপ্রত্যাশীদের দীর্ঘ সারি। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, কেউ গতকাল সন্ধ্যায় স্টেশনে এসেছেন। কেউ এসেছেন রাতে।

default-image

আবীর বলেন, ‘এত এসির টিকিট, এত অল্প সময়ে কীভাবে শেষ হলো? কাউন্টার থেকে বলা হলো, এসির টিকিট পেতে হলে আরও আগে আসতে হবে। আমি বললাম, আর কত আগে আসব?’

আজ সকাল ৮টা ২০ মিনিট নাগাদ কয়েকটি রেলপথের এসির টিকিট শেষ হয়ে গেছে বলে কাউন্টার থেকে জানানো হয়। তখন অপেক্ষমাণ টিকিটপ্রত্যাশীরা হইচই করে ওঠেন। তাঁরা বলতে থাকেন, ‘টিকিট কই, টিকিট কই’।

দুটি শোভন চেয়ার ও একটি এসির টিকিট পেয়েছেন হাবীবুর রহমান নামের এক তরুণ। তিনি সারিতে ১৭ নম্বর সিরিয়ালে ছিলেন। হাবীবুর জানান, গতকাল সন্ধ্যায় ইফতারের পরপরই তিনি স্টেশনে আসেন। তাঁর তিনটি এসির টিকিট দরকার ছিল। কিন্তু পেয়েছেন একটি।

default-image

হাবীবুর বলেন, ‘চোখের সামনে এসির টিকিট শেষ হয়ে গেল। তাই শোভন চেয়ারের টিকিট না কেটে উপায় ছিল না। নাই মামার চেয়ে কানা মামা ভালো। কিছুক্ষণ পর হয়তো কোনো টিকিটই পেতাম না।’

গতকাল বেলা তিনটায় কমলাপুর রেলস্টেশনে এসেছেন মুগদার বাসিন্দা নাবিল হোসেনসহ তিনজন। তাঁদের পরিবারের ১২টি টিকিট লাগবে। সারিতে নাবিলের সিরিয়াল নম্বর ৫০।

নাবিল বলেন, ‘ঘণ্টার পর ঘণ্টা সারিতে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে ভেবে বাসা থেকে চেয়ার নিয়ে এসেছি। রাতে স্টেশনেই ছিলাম। সাহ্‌রি এখানেই করেছি। এত কষ্টের পরও এসির টিকিট পাব কি না সন্দেহ। টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার মিনিট বিশেক পরই এসির টিকিট শেষ বলে শুনেছি। প্রথম সাত থেকে আটজন এসির টিকিট কিনতে পেরেছেন।’

default-image

আজ ঈদযাত্রার অগ্রিম টিকিট বিক্রি চলবে বিকেল চারটা পর্যন্ত। কমলাপুর রেলস্টেশনে কাউন্টার আছে ২৩টি। এর মধ্যে ১৬টি কাউন্টার থেকে ঈদযাত্রার অগ্রিম টিকিট বিক্রি হচ্ছে।

কাউন্টার থেকে এক ব্যক্তি চারজনের টিকিট কাটতে পারছেন। তবে তার জন্য প্রত্যেক যাত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি দিতে হচ্ছে।

ঈদ উপলক্ষে আগে বিভিন্ন সময় টিকিট কালোবাজারির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ জন্য এবার কালোবাজারি বন্ধে টিকিট কেনার সময় যাত্রীদের জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্মনিবন্ধন সনদের ফটোকপি কাউন্টারে দেখাতে হবে।

এবার ঢাকার কমলাপুর স্টেশনসহ পাঁচটি স্থানে অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে।ঈদযাত্রার প্রতিটি ট্রেনে নারী ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের জন্য একটি করে আলাদা কোচ সংযোজন করা হচ্ছে।

রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, ঈদ উপলক্ষে ছয়টি বিশেষ ট্রেন চলবে। এগুলো হচ্ছে চাঁদপুর স্পেশাল দুই জোড়া, দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল এক জোড়া, শোলাকিয়া স্পেশাল দুই জোড়া, খুলনা স্পেশাল এক জোড়া। এসব ট্রেনের টিকিট অনলাইনে বিক্রি করা হবে না।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন