default-image

সদ্য বিদায়ী পুলিশ মহাপরিদর্শক মো. জাবেদ পাটোয়ারী আজ মঙ্গলবার তাঁর শেষ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর তাঁর লক্ষ্য ছিল পুলিশ যেন জনতার পুলিশ হয়ে ওঠে। করোনাভাইরাসের এই সংক্রমণকালে সাধারণ মানুষ বুঝতে পারছেন পুলিশ তাঁদের পাশে আছে।

জাবেদ পাটোয়ারী নবনিযুক্ত আইজিপি বেনজীর আহমেদকে অভিনন্দন জানান। তাঁর প্রতি কোনো সুপারিশ আছে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা একটা রিলে রেসের মতো। আমি এখন রিলে রেসের দণ্ড বেনজীর আহমেদের হাতে দিয়ে যাব।’

মাদক নিয়ন্ত্রণ ও জঙ্গিবাদ দমনের চেষ্টা ছাড়াও মো. জাবেদ পাটোয়ারী মোটাদাগে ছয়টি ক্ষেত্রে তিনি কী কী কাজ করেছেন, তার বিবরণ দিয়েছেন। জাবেদ পাটোয়ারী বলেছেন, মানুষ যেন পুলিশের কাছে সেবা পায়, এ-ই ছিল তাঁর প্রথম ও প্রধান লক্ষ্য। তিনি দেশের সাত শতাধিক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) পুলিশ সদর দপ্তরে নিয়ে এসে একজন একজন করে কথা বলেন এবং তাঁদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা করেন। তিনি চেয়েছেন পুলিশের ভাবমূর্তি যেন উজ্জ্বল হয়। করোনাকালীন পুলিশ সত্যিকারভাবেই বাহিনীর ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে বলে তিনি মনে করেন। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, রোগী ও চিকিৎসাসেবাকর্মীদের সহায়তা করা, দাফন-কাফনে অংশ নেওয়া, ত্রাণ বিতরণ করা এবং চাল আত্মসাৎকারীদের শনাক্ত করা ও ব্যবস্থা নেওয়ার মতো কাজে পুলিশ যুক্ত আছে।

এ ছাড়া কনস্টেবল ও উপপরিদর্শক পদে নিয়োগে স্বচ্ছতা আনায় পুলিশ তাঁর সময়কালে প্রশংসিত হয়েছে বলে উল্লেখ করেন পুলিশ মহাপরিদর্শক। তিনি বলেন, ‘কষ্ট করে পড়াশোনা করলে নিজ যোগ্যতায় চাকরি পাওয়া যায়, এ বিশ্বাস প্রতিষ্ঠা করা জরুরি ছিল। নইলে হতাশা জন্ম নেয়। অপরাধজগতে জড়িয়ে পড়ার প্রবণতা দেখা দেয়। এ থেকে তরুণ সমাজকে রক্ষা করতে হবে।’
নিয়োগের মতো পদোন্নতি ও পদায়নে মেধা ও যোগ্যতা গুরুত্ব পেয়েছে বলে জানান মো. জাবেদ পাটোয়ারী।

বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষা ও চাকরির নিয়োগপ্রক্রিয়ায় জড়িত জালিয়াত চক্রকে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করাও সম্ভব হয়েছে বলে উল্লেখ করেন সদ্য বিদায়ী পুলিশ মহাপরিদর্শক। এ সময়ে চালু হওয়া পুলিশের ৯৯৯ সেবা মানুষের আস্থা অর্জন করেছে। এ নম্বরে রেকর্ডসংখ্যক মানুষ ফোন করে সাহায্য চেয়েছেন। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সময়ও বহু মানুষ এ নম্বরে ফোন করেন।

পুলিশ সদস্যদের জন্য জাবেদ পাটোয়ারী অবসরকালীন রেশন–সুবিধা নিশ্চিত করেছেন। তা ছাড়া মেধা বৃত্তির সম্প্রসারণ করেছেন পুলিশ পরিবারের সদস্যদের জন্য।

জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, যে কাজগুলো চলছে, বেনজীর আহমেদ তা এগিয়ে নেবেন। তিনি একজন দক্ষ কর্মকর্তা। করোনাকালে চ্যালেঞ্জ রয়েছে, এরপর আরও অনেক চ্যালেঞ্জ আসবে। পরবর্তী আইজিপি প্রতিটি চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0