default-image

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে আরও একজন চিকিৎসক মারা গেছেন। অধ্যাপক ডা. এম এ জলিল নামে এই চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ। এ নিয়ে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে বা করোনার উপসর্গ নিয়ে ১০১ জন চিকিৎসক মারা গেলেন।

চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) এক শোকবার্তায় জানিয়েছে, ডা. এম এ জলিল বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে পড়ালেখা করে এই চিকিৎসক কর্মজীবনে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ছাড়াও কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি সন্তান-সন্ততিসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে বিএমএ’র পক্ষ থেকে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে এবং মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়েছে।

বিএমএ’র তথ্য অনুযায়ী, এ নিয়ে চলতি মাসে আটজন চিকিৎসক করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেলেন। এ ছাড়া শনিবার পর্যন্ত সারা দেশে স্বাস্থ্য সেবা খাতের আট হাজার ৯২ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে চিকিৎসক দুই হাজার ৮৫৩ জন, নার্স এক হাজার ৯৬৮ জন এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী তিন হাজার ২৭১ জন।

বিজ্ঞাপন

করোনায় দেশে প্রথম চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছিল ১৫ এপ্রিল। ওই দিন মারা গিয়েছিলেন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন আহমদ (৪৭)। ডা. মঈন উদ্দীন আহমেদ করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করতে গিয়েই সংক্রমিত হয়েছিলেন। ঢাকার একটি হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর মৃত্যুর খবরে চিকিৎসক সমাজসহ সব পেশাজীবী শ্রেণি ও সাধারণ মানুষের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।

চিকিৎসকেরা করোনা মোকাবিলায় সামনের সারির যোদ্ধা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মহামারির শুরু থেকে চিকিৎসকসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষায় বিশেষ নজর দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে আসছে। সংস্থাটি বলেছে, স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত না হলে অন্য সবার সুরক্ষা নিশ্চিত হবে না।

মন্তব্য পড়ুন 0