বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪ হাজার ৬৭০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে টানা ১১ দিন দেশে রোগী শনাক্তের হার ৫-এর নিচে রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, কোনো দেশে টানা দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে রোগী শনাক্তের হার ৫-এর নিচে থাকলে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে বলে ধরা হয়।
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনার সংক্রমণ দেখা দেয়। কয়েক মাসের মধ্যে এ ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ।

এরপর বিভিন্ন সময়ে সংক্রমণ কমবেশি হলেও গত মে মাসের শেষ দিক থেকে করোনার ডেলটা ধরনের দাপটে সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ে। গত ২৬ মের বুলেটিনে করোনায় ১৭ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছিল। এরপর ক্রমে করোনায় মৃত্যু ও রোগী শনাক্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে। জুলাইয়ের দুই দিন দেশে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়। এরপর আগস্টে দেশে করোনার গণটিকাদান শুরু হয়। গত মাসের শেষ দিক থেকে দেশে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু কমতে শুরু করে।

সংক্রমণের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত দেশে মোট ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৭৫৮ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৫৩১ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ১৬ হাজার ৯০১ জন। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৯৬০ জন।

সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় যে ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে, তাঁদের মধ্যে পুরুষ ১২ ও নারী ৯ জন। এ সময় সবচেয়ে বেশি ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন ৫ জন। রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে কেউ মারা যাননি। রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট বিভাগে একজন করে মারা গেছেন।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন