নতুন শনাক্ত হওয়া ১১০ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় রয়েছেন সর্বোচ্চ ৫১ জন। এ ছাড়া সাদুল্যাপুরে ১০ জন, গোবিন্দগঞ্জে ২৪ জন, ফুলছড়িতে ২ জন, পলাশবাড়ীতে ১০ জন, সুন্দরগঞ্জে ৮ জন ও সাঘাটা উপজেলায় ৫ জন রয়েছেন।

গত বছরের ২০ মার্চ জেলায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর জেলায় করোনার প্রকোপ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৫৭৩। জেলার মোট ২৪ জন করোনায় মারা গেছেন। এর মধ্যে চলতি বছরের ১ মার্চ থেকে আজ ৯ জুলাই পর্যন্ত ৪ মাস ৯ দিনে ১ হাজার ১১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে আটজনের।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গাইবান্ধায় বর্তমানে ৪৫৬ জন করোনা রোগী আছেন। এর মধ্যে চারজন গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালের ২০ শয্যার আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন। বাকিরা বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জেলা সিভিল সার্জন আ ক ম আখতারুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, সচেতনতার অভাবে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রচারণা চালানো হচ্ছে। তবে যেভাবে করোনা বাড়ছে, তাতে লকডাউন আরও কঠোর করা ছাড়া সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়।