বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আগের দিন চট্টগ্রামে ২২২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ছিল প্রায় ১২ দশমিক ৪০।

চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৩ হাজার ৮৯২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় চট্টগ্রামে মোট মারা গেছেন ১ হাজার ৩৩৫ জন।

২০২০ সালের ৩ এপ্রিল চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ৯ এপ্রিল করোনা সংক্রমিত হয়ে প্রথম কোনো ব্যক্তি মারা যান।

দেশে করোনা সংক্রমণ নতুন করে বাড়ছে। মাত্র এক সপ্তাহে দেশে করোনা রোগী বেড়েছে ১৯১ শতাংশ। এই পরিস্থিতিকে ‘অ্যালার্মিং’ (উদ্বেগজনক) হিসেবে উল্লেখ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তারা বলছে, উপসর্গ থাকার পরও অনেকে করোনা শনাক্তের নমুনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না। উপসর্গ থাকা ব্যক্তিরা পরীক্ষা করালে করোনা শনাক্তের সংখ্যা আরও বাড়বে।

দেশে করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির কারণে প্রায় পাঁচ মাস পর আবার বিধিনিষেধ জারি করল সরকার। আজ বৃহস্পতিবার কার্যকর হওয়া এসব বিধিনিষেধের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মহামারি থেকে সুরক্ষার জন্য জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনা। করোনা সংক্রমণ দ্রুত ছড়ানো ঠেকাতে মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য গণপরিবহনে সক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী পরিবহন। প্রাত্যহিক জীবনে হাত ধোয়া ও স্যানিটাইজ করার অভ্যাস চালু রাখা।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন