বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকার বাইরে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন চট্টগ্রামে। চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা মিলিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২০৭। আর বিভাগে মোট শনাক্ত হয়েছেন ২৯৭ জন। এরপর রাজশাহী বিভাগে ৫৬, খুলনা বিভাগে ৫১, সিলেট বিভাগে ৩৬, ময়মনসিংহে ১৯, রংপুরে ১১ এবং বরিশাল বিভাগে ৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।
ঢাকার বাইরের জেলাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন কক্সবাজারে ৪৭ জন। এ ছাড়া রাজশাহী মহানগর ও জেলা মিলিয়ে ২৩ এবং সিলেট মহানগর ও জেলা মিলিয়ে ২৭ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

ঢাকায় কিছুদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে রোগী বাড়তে থাকলেও হাসপাতালগুলোতে সেভাবে চাপ পড়েনি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকার সরকারি হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত বেশির ভাগ শয্যায়ই খালি রয়েছে। খালি রয়েছে বেশির ভাগ আইসিইউ ও এইচডিইউ শয্যাও।

গত বছর আগস্টে দেশে করোনার গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর সংক্রমণ কমতে থাকে। এর মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনার নতুন ধরন অমিক্রন বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিবেশী দেশ ভারতে অমিক্রন ছড়ানোয় দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়ে যাচ্ছে, যেখানে মাসখানেক আগেও এই সংখ্যা ১০ হাজারের আশপাশে ছিল।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। বাংলাদেশেও সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান, সমাবেশ বন্ধ রাখাসহ একগুচ্ছ বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। গতকাল সোমবারই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক আদেশে এসব বিধিনিষেধের কথা জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন