বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দেশে নতুন রোগী ও পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার কমেছে। তবে বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত সোমবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৫৯৫ জন। এ সময় করোনায় সংক্রমিত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

দেশে করোনা পরিস্থিতি প্রায় সাড়ে তিন মাস নিয়ন্ত্রণে থাকার পর গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে রোগী বাড়তে শুরু করে। করোনাভাইরাসের নতুন ধরন অমিক্রনের দাপটে রোগী শনাক্ত ও শনাক্তের হার দ্রুত বাড়তে থাকে। গত ৬ জানুয়ারি দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজার ছাড়ায়। এর দুই সপ্তাহের মাথায় ২০ জানুয়ারি দৈনিক শনাক্ত ১০ হাজার ছাড়িয়ে যায়।

সংক্রমণ বৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় দৈনিক রোগী শনাক্ত ১৫ হাজারের ওপরে উঠেছিল। ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তা ১০ হাজারের ওপরে ছিল। এরপর নিয়মিত রোগী শনাক্ত ও শনাক্তের হার কমছে। দেশে করোনার সংক্রমণ কমায় আজ থেকে আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে।

আজকের ভার্চ্যুয়াল বুলেটিনে অধ্যাপক নাজমুল বলেন, ‘সংক্রমণের শতকরা হিসাবের যে হার, শনাক্তের যে সংখ্যা সেটি কমে এসেছে। এটি অবশ্যই আমাদের এ পর্যন্ত যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে তার সুফল। কিন্তু এতে আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই।’

অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম টিকা পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলেন আজ। তিনি জানান, এ পর্যন্ত ১০ কোটি ৫০ লাখের বেশি মানুষ করোনার প্রথম ডোজের টিকা পেয়েছেন। দ্বিতীয় ডোজ ৭ কোটি ৯৫ লাখ মানুষ। আর এ পর্যন্ত তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ পাওয়া ব্যক্তির সংখ্যা ৩৩ লাখের বেশি।

রোগীর সংখ্যা কমে আসায় কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোর ওপর চাপ কমেছে বলে জানান ডা. নাজমুল ইসলাম।

করোনাভাইরাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন