চাঁদপুরের মতলবে গ্রাহকদের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় অভিযুক্ত মো. জাকারিয়া শর্ত সাপেক্ষে থানা থেকে ছাড়া পাওয়ার পর কারও সঙ্গে যোগাযোগ করছেন না। সম্প্রতি তিনি বিয়ে করেছেন বলে জানা যায়। অভিযোগ উঠেছে, আত্মসাতের টাকায় বিয়ে করেছেন তিনি।
জাকারিয়া ব্রাইট গ্রিন এনার্জি ফাউন্ডেশন নামে একটি বেসরকারি সৌরবিদ্যুৎ প্রতিষ্ঠানের মতলব উত্তর উপজেলার সুজাতপুর বাজার শাখার অব্যাহতি পাওয়া ব্যবস্থাপক।
শাখার ব্যবস্থাপক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ৪ ডিসেম্বর তদন্তে গ্রাহকের দুই লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাতের বিষয়টি ধরা পড়ে। ৫ ডিসেম্বর অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে জাকারিয়াকে থানায় সোপর্দ করা হয় ও দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আত্মসাতের টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে পরিশোধ করার শর্তে থানা থেকে ছাড়া পান তিনি। পরে ফেনী সদরে নিজ বাড়িতে চলে যান। সেখান থেকে আর ফেরেননি।
এ সময় কিছু টাকা পরিশোধ করলেও বেশির ভাগ টাকাই দেননি। কিছুদিন আগে তিনি বিয়ে করেছেন। তবে আত্মসাতের টাকায় বিয়ের
খরচ মিটিয়েছেন কি না, নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না বলে জানান তিনি।
উপজেলার ইসলামাবাদ গ্রামের বাসিন্দা ওই প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক পারভিন আক্তারের অভিযোগ, ‘ব্যবস্থাপক তাঁর ২৫ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে লাপাত্তা। এত দিন উনি বিয়ে করেননি, এখন করেছেন। টাকা পেলেন কোথায়?’
প্রতিষ্ঠানের কুমিল্লা অঞ্চলের ব্যবস্থাপক মো. রইসউদ্দিন বলেন, ‘এক লাখ ২৫ হাজার টাকা দিয়েছেন জাকারিয়া। বাকি টাকা কবে দেবেন, তাও অনিশ্চিত। মুঠোফোনে তাঁকে পাওয়া যাচ্ছে না। জাকারিয়া আত্মসাতের টাকা দিয়ে বিয়ের খরচ মিটিয়েছেন বলে একাধিক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন। এ ব্যাপারে স্পষ্ট কিছু বলতে পারব না।’
এ বিষয়ে মো. জাকারিয়ার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সংযোগ বন্ধ পাওয়া যায়। তাঁর পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
৭ ডিসেম্বর প্রথম আলোর বিশাল বাংলায় ‘তাঁর ভুল হয়ে গেছে’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন