ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ পৌরসভার কাঁকনহাটি এলাকায় গতকাল শনিবার দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে মো. নুরুল আমীন (৫০) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন।
জমির মালিকানা নিয়ে ওই সংঘর্ষে নয়জন আহত হন। আহতদের মধ্যে চারজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এঁদের মধ্যে নিহত নুরুল আমীনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমের (৪০) অবস্থা আশঙ্কাজনক।
কাঁকনহাটি এলাকার কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ওই এলাকার মজনু মিয়ার বোন আনোয়ারা বেগমকে বিয়ে করেন কৃষক মো. নুরুল আমীন। বিয়ের পর মজনুর সৎবোন ইয়াসমীনের কাছ থেকে ৬৫ শতক জমি কেনেন নুরুল আমীন।
নুরুলের পুত্রবধূ তানিয়া আক্তার বলেন, গতকাল সকালে তাঁর শ্বশুর জমিতে নেমে চাষাবাদ শুরু করলে মজনুর পক্ষের লোকজন তাঁর ওপর হামলা চালায়।
এ সময় এক যুবক নুরুল আমীনকে রামদা দিয়ে কোপ দিলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে আনোয়ারা, তানিয়া, কদ্দুস ও রমজান হামলার শিকার হন।
এ ঘটনায় মজনু মিয়ার পক্ষের সুফিয়া, রোমান, কাইয়ুম, জুনায়েদ, আবদুল গণি ও আঙ্গুরা আহত হন। গুরুতর আহত নুরুল আমীনকে স্বজনেরা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তিনি মারা যান।
খবর পেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. গোলাম মওলা গিয়ে মজনুর বোন ফজিলা খাতুনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।
গোলাম মাওলা বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ওই নারীকে আটক করা হয়েছে। মজনু মিয়ার বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন