default-image

রাজধানীর উত্তরায় শিশু গৃহকর্মীর মৃত্যুর খবরে বিক্ষোভ করেছে স্থানীয় বাসিন্দারা। শিশুটির নাম বৈশাখী (১২)। গলায় ফাঁস লাগা অবস্থায় আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে তার মৃতদেহ উদ্ধার হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার নাবিদ কামাল শৈবাল। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের ১৮ নম্বর সড়কের ৫ নম্বর বাসায়। পুলিশ জানায়, ওই ভবনের ছয়তলায় স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রিফাত ফেরদৌস থাকেন। ঘরের দরজা বন্ধ থাকায় তিনি পুলিশকে খবর দেন। দরজা ভেঙে পুলিশ ঢুকে বৈশাখীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। বৈশাখী নওগাঁয় তাদের গ্রামের বাড়িতে গিয়েছিল। কয়েক দিন ছুটি কাটিয়ে গতকাল সোমবার সে কাজে যোগ দেয়। পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে ওই বাসায় যায়। তাদের দাবি বৈশাখীকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল।

পাশেই একটি বাসায় গাড়ি চালান মো. রেজা। তিনি বলেন, বৈশাখীকে মেরে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় বাসিন্দারা ওই ভবনের সামনে অবস্থান নেন। তাদের বক্তব্য হলো, বাড়ি থেকে আসার পর এমনকি ঘটেছিল যে সে গলায় ফাঁস দেবে? বিক্ষুব্ধ লোকজন বাড়ির সামনে আগুন জ্বালিয়ে দেয় এবং ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। ফায়ার সার্ভিসকেও তারা সরিয়ে দেয়। পরে পুলিশ ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনে।

শিশুটির বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলেছেন উত্তরার পুলিশ। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তাঁরা।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন