কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে আজ শুক্রবার বিকেলে ২৩ হাজারের বেশি ইয়াবা বড়িসহ এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। আটকের সময় তিনি নিজেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পরিচয় দিয়ে সবাইকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। তাঁর নাম শহীদুর রহমান (৪৫)। পুলিশের দাবি, এর আগেও তিনি সচিবসহ সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার পরিচয় দিয়ে বেশ কয়েকবার কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ইয়াবা পাচার করেছেন বলে তাঁদের কাছে স্বীকার করেছেন।

শহীদুরের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে। থাকেন ঢাকার উত্তরায়। পুলিশের দাবি, তিনি একজন ইয়াবা পাচারকারী। তাঁর সুনির্দিষ্ট কোনো পেশা নেই।
কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, কক্সবাজার থেকে বেসরকারি বিমানে করে ঢাকায় যাওয়ার জন্য বিমানবন্দরে আসেন শহীদুর রহমান নামের এক ব্যক্তি। বিমানবন্দরে ঢোকার পর নিয়ম অনুযায়ী বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তাঁর হাতে থাকা ব্যাগটি পরীক্ষা করতে স্ক্যানিংয়ে দিতে অনুরোধ জানান। এ সময় তিনি নিজেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পরিচয় দিয়ে ব্যাগটি স্ক্যানিং করতে রাজি না হয়ে সবাইকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশকে জানানো হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁর ব্যাগটি তল্লাশি করে ২৩ হাজার ৪০০ ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ভুয়া উপসচিব পরিচয় দিয়ে ইয়াবা পাচারের কথা স্বীকার করেন। তাঁর কাছ থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের লোগোসহ কয়েকটি ভিজিটিং কার্ড উদ্ধার করা হয়।

অভিযান পরিচালনাকারী কক্সবাজার সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রহিম জানান, আটক শহীদুর রহমানের কাছ থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব খোরশেদ আলম লেখা ভিজিটিং কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন