default-image

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে সার্কাসের হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি করা হচ্ছিল। গত শনিবার ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপারের (এসপি) জিপ থেকে চাঁদা আদায় করতে গেলে হাতির মাহুত ও তাঁর সহকারীকে আটক করা হয়। এই ঘটনার পর চাঁদাবাজি বন্ধ হয়।
আটক হওয়া দুজন হলেন মাহুত হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রাজনগর গ্রামের সাগর (২৫) ও তাঁর সহকারী সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা উপজেলার চবিলা মধ্যপাড়া গ্রামের আবদুস সামাদের পুত্র রুবেল (২০)। পরে অবশ্য মুচলেকা নিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জের লোহাগাড়া কলেজ মাঠে পক্ষকালব্যাপী বিজয় মেলা ১৫ ডিসেম্বর শুরু হয়েছে। ২৪ ডিসেম্বর থেকে মেলায় ‘দি নিউ সোনার বাংলা সার্কাস ’ নামের একটি দল সার্কাস প্রদর্শনী শুরু করে। শুরু থেকেই আশপাশের গ্রামের বাড়ি, দোকান ও বাজারগুলোতে দিনের বেলা সালামির নামে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি শুরু করা হয়। রাস্তায় বাস, ট্রাক, জিপ থামিয়েও চাঁদা তোলা হচ্ছিল। পাঁচ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায় করা হচ্ছিল। গত শনিবার দুপুরে ঠাকুরগাঁওয়ের জিপটি ঠাকুরগাঁও-পীরগঞ্জ সড়কের বনবাড়ি নামক জায়গায় পৌঁছালে হাতি দিয়ে থামিয়ে চাঁদা দাবি করা হয়। এ সময় এসপি আবদুর রহিম শাহ চৌধুরী ওই জিপে ছিলেন। পরে তিনি পীরগঞ্জ থানার পুলিশকে জানালে ঘটনাস্থলে এসে পুলিশ মাহুত ও তাঁর সহকারীকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
পীরগঞ্জ থানার ওসি মো. ইশতেসাম জানান, হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি এবং মানুষকে ভয়ভীতি দেখাবে না মর্মে মুচলেকা দিয়ে মাহুত ও তাঁর সহকারীকে পীরগঞ্জ উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের খলিলুর রহমানের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়।
ঠাকুরগাঁওয়ের এসপি আবদুর রহিম শাহ চৌধুরী বলেন, ‘পুলিশ সাধারণ মানুষের সহযোগী। মাহুতকে আইনে সোপর্দ করলে তাদের পরিবার পথে নামবে। সবকিছু চিন্তা করে তাদের ছেড়ে দিয়েছি। তবে এরপর হাতি দিয়ে চাঁদাবাজির সংবাদ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
সার্কাস দলের ব্যবস্থাপক মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, ‘এসপি সাহেবের ঘটনার পর থেকে আমি হাতি দিয়ে ভিক্ষা আদায় বন্ধ করে দিয়েছি।’

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন