default-image

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায় সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় এক কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রেমের সম্পর্ক থেকে ঘনিষ্ঠ ছবি ছড়িয়ে দেওয়া এবং বিয়ে–প্রত্যাখ্যাত হওয়ার ঘটনায় কলেজছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার সকালে নিজ কক্ষ থেকে কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় প্রেমিককে আসামি করে কুলাউড়া থানায় মামলা হয়েছে।

মারা যাওয়া কলেজছাত্রীর নাম নুছরাত জান্নাত (২১)। নুছরাতের বাড়ি কুলাউড়া পৌর শহরের উত্তর লস্করপুর এলাকায়। তিনি কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়তেন।

মামলার এজাহার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী উত্তর জয়পাশা এলাকার বাসিন্দা নির্মাণশ্রমিক রুহান মিয়ার (২৪) সঙ্গে নুছরাতের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। রুহান কৌশলে নুছরাতের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তোলেন। ওই ছবি প্রতিবেশী এক ব্যক্তির মুঠোফোনেও পাঠান। বিষয়টি জানার পর গত শুক্রবার নুছরাতের স্বজনেরা রুহানকে বাড়িতে ডেকে আনেন। এ সময় রুহান সম্পর্কের বিষয়টি স্বীকার করলে স্বজনেরা তাঁর সঙ্গে নুছরাতকে বিয়ে দেবেন বলে জানান। পরদিন শনিবার রাতে রুহান নুছরাতদের বাড়িতে গিয়ে সম্পর্কের বিষয়টি অস্বীকার করেন এবং নুছরাতকে বিয়ে করবেন না বলেও জানিয়ে দেন। এতে নুছরাত মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।

গতকাল সকাল পৌনে সাতটার দিকে নুছরাতের মা আছিয়া বেগম মেয়েকে নাশতা খাওয়ার জন্য দরজা খুলতে ডাকাডাকি করেন। কিন্তু ভেতর থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে তাঁর সন্দেহ হয়। একপর্যায়ে দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে নুছরাতের লাশ ঝুলতে দেখে চিৎকার শুরু করেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে নুছরাতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি মৌলভীবাজার জেলা সদরে অবস্থিত ২৫০ শয্যার হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

গতকাল রাত ১০টার দিকে নুছরাতের মা আছিয়া বেগম বাদী হয়ে রুহানকে আসামি করে মামলা করেন। প্রেমের সম্পর্ক প্রত্যাখ্যান করা ও মুঠোফোনে আপত্তিকর ছবি ছড়ানোর কারণে নুছরাত আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

কুলাউড়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম আজ সোমবার সকালে বলেন, প্রেমের সম্পর্ক প্রত্যাখ্যানের জেরে নুছরাত আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে রুহান পলাতক। তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

অভিযোগ সম্পর্কে বক্তব্য জানতে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে রুহান মিয়ার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। আজ বেলা ১১টার দিকে বাসায় গিয়ে খোঁজ করে তাঁকে পাওয়া যায়নি। পরিবারের সদস্যরা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন