মওদুত হাওলাদার জানান, আনিসুর রহমানের কাছ থেকে হেনোলাক্সের চেয়ারম্যান ও তাঁর স্ত্রী মোটা অঙ্কের অর্থ নিয়ে ফেরত দেননি বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। এ কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

গতকাল সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন আনিসুর রহমান। আজ সকাল সোয়া ছয়টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। আনিসুর লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। তাঁর শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল। গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় আনিসুর রহমানকে উদ্ধার করে শাহবাগ থানার পুলিশ। তাঁকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

আনিসুরের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায়। তিনি ঠিকাদারির ব্যবসা করতেন বলে জানা গেছে।

আনিসুর কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। তিনি ১৯৯৩ সালে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। এ ছাড়া তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য।

মো. আলী নামের আনিসুরের এক বন্ধু প্রথম আলোকে বলেন, হেনোলাক্স কোম্পানির কাছে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পান তিনি (আনিসুর)। কিন্তু কোম্পানিটি পাওনা টাকা দিচ্ছিল না। এ নিয়ে আগে মানববন্ধন করেছেন তিনি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। তারপরই তিনি গায়ে আগুন দেন।

হেনোলাক্স কর্তৃপক্ষের বক্তব্য জানতে প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে দেওয়া ফোন নম্বরে যোগাযোগ করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন