বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনিক চাকমার বাড়ি রাঙামাটি সদরের বালুখালী ইউনিয়নে। তাঁর বাবার নাম মোহন লাল চাকমা। মায়ের নাম গোপী দেবী।

একই কটেজের বাসিন্দা ও সমাজতত্ত্ব দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সুভাষ চাকমা প্রথম আলোকে বলেন, ‘অনিক প্রায় প্রতিদিনই ভোরে ঘুম থেকে উঠে যায়। কিন্তু আজ ওঠেনি। দরজাও বন্ধ ছিল। এরপর ৯টার দিকে তার দরজায় টোকা দিই। দরজা না খোলায় ভেবেছি, সে ঘুমাচ্ছে। আরও এক ঘণ্টা পর দরজা না খোলায় আবার টোকা দিই। এরপর জানালার ফাঁক দিয়ে দেখি লাশ ঝুলছে। পরে প্রক্টরিয়াল বডিকে জানাই।’

কটেজের বাসিন্দা ও পালি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নরেশ চাকমা বলেন, ‘গতকাল রোববার ১১টার দিকে সর্বশেষ তাকে কটেজে দেখি। ৬ জানুয়ারি থেকে তার পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। সে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর শহিদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, কয়েকজন শিক্ষার্থীর মাধ্যমে বিষয়টি তিনি জেনেছেন। এরপর পুলিশ নিয়ে কটেজ থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। কক্ষে কয়েক পৃষ্ঠার নোট পাওয়া গেছে। তাঁর পরিবারকেও জানানো হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. কবির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, দরজা ও জানালা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। পরে দরজা ভেঙে লাশ নামানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন