default-image

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ঘুমন্ত মা-বাবার পাশ থেকে নিখোঁজ হওয়া ১৭ দিনের নবজাতক সোহানা আক্তারের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। ঘটনার দুই দিন পর আজ বুধবার সকালে তাদের বাড়ির পুকুর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি বাগেরহাট সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হচ্ছে।

পরিবারের দাবি ছিল, শিশুটিকে কেউ চুরি করেছে। তবে কারা শিশুটিকে চুরি করেছে বা বাড়ির পুকুরে ফেলে হত্যা করেছে, তা এখনো নিশ্চিত করে বলতে পারেনি পুলিশ।

গত রোববার রাতে মোরেলগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের গাবতলা গ্রামের সুজন খানের ঘর থেকে মা-বাবার সঙ্গে ঘুমিয়ে থাকা ১৭ দিনের সোহানা নিখোঁজ হয়। পরের দিন সোমবার রাতে শিশু চুরির ঘটনায় সোহানার দাদা আলী হোসেন খান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা লোকজনের বিরুদ্ধে একটি অপহরণ মামলা করেন।

বিজ্ঞাপন

মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম আজ সকালে বলেন, স্থানীয় লোকজন সুজন খানের বাড়ির পুকুরে শিশুটির মরদেহ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। কারা শিশুটিকে পুকুরে ফেলে হত্যা করেছে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। জড়িত ব্যক্তিদের শনাক্ত করতে তদন্ত চলছে।

এর আগে ২০১৯ সালের ১১ মার্চ একই উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামে মা-বাবার পাশ থেকে দেড় মাস বয়সী একটি ছেলেশিশু চুরির ঘটনা ঘটে। সে সময় শিশুটিকে ফিরিয়ে দিতে পরিবারের কাছে লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। এই ঘটনায় জড়িত এক যুবককে আটকের পর ১৭ মার্চ একটি মৎস্য ঘেরের শৌচাগার থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মন্তব্য পড়ুন 0