চেয়ারম্যানের মধ্যস্থতায় বাল্যবিয়ের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

বিজ্ঞাপন
default-image

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলায় নবম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীর বিয়ে দেওয়ার ঘটনায় বিবাহ নিবন্ধকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে গতকাল বিকেলে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোরশেদ আলম বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে কমলনগর থানায় মামলা করেন। ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের মধ্যস্থতায় তাঁর বাড়িতে বাল্যবিয়ে হলেও চেয়ারম্যানকে আসামি করা হয়নি।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন উপজেলার চরমার্টিন ইউনিয়নের বিবাহ নিবন্ধক কাজী মাকছুদুর রহমান, কনের চাচা ও বরের বাবা।

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় একটি মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র ও ছাত্রীর বিয়ে হয় চর মার্টিন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী মিয়ার বাসায়। বিয়ের দেনমোহর ধার্য করা হয় সাত লাখ টাকা।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান ইউছুফ আলী মিয়ার ভাষ্য, দুই ছেলে–মেয়ের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ঈদের দিন তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। তিন দিন পর তাদের উদ্ধার করে স্বজনেরা। তখন উভয়পক্ষের লোকজন তাঁর কাছে যান। জন্ম নিবন্ধন সনদ দেখে বয়স ঠিক থাকায় তাদের বিয়ে হয়েছে। তাদের জন্ম নিবন্ধন সনদ যে ভুয়া ছিল, সেটি তাঁর জানা ছিল না বলে তিনি দাবি করেন।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নুরুল আবছার বলেন, বাল্যবিয়ের ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে। তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের আজ রোববার সকালে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন