বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্যকে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে মারধর করেছেন সংগঠনটির সূর্যসেন হল শাখার কর্মীরা। আহত অবস্থায় ওই নেতাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত মাহবুব খান কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুল কবিরের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।
শামসুল কবির অভিযোগ করেন, সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংগঠনের শামসুন নাহার হলের সভাপতি নিশীতা ইকবালের বিরুদ্ধে ইয়াবা ব্যবসায়ের অভিযোগ সম্পর্কিত বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশিত হয়। কিন্তু নিশীতা এসব সংবাদের পেছনে শামসুল কবিরের হাত রয়েছে বলে দাবি করেন। গতকাল দুপুরে ব্যক্তিগত কাজে শাহবাগে যাওয়ার পথে কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের সামনে নিশীতা কয়েকজনকে নিয়ে তাঁর রিকশা আটকে এ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। কিন্তু তিনি দলীয় ফোরামের বাইরে এ সম্পর্কে কোনো কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
শামসুল কবির জানান, পরে শাহবাগে থাকা মাহবুবসহ ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মীর সঙ্গে তিনি দেখা করে চলে যান। এর পরপরই নিশীতার নির্দেশে সূর্যসেন হলের ছাত্রলীগের কর্মীরা তাঁকে না পেয়ে মাহবুবের ওপর হামলা চালান।
এ সময় তাঁর সঙ্গে থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পদধারী এক নেতা প্রথম আলোকে বলেন, মারধরের সময় ছাত্রলীগের সূর্যসেন হল শাখার সভাপতি মোবারক হোসাইন গ্রন্থাগারের সামনে নিশীতা ইকবালের সঙ্গে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তবে মোবারকের দাবি, তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই মারামারি শেষ হয়ে যায়। আর হল ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে নয়, এই হলের নিশীতার এলাকার কিছু ছোট ভাই মাহবুবকে মারধর করেছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন