default-image

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দীপক শীলকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ড্রাইভিং লাইসেন্স দেখাতে না পারায় এই কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে বলে প্রথম আলোকে জানিয়েছেন ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ৷

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের আগে রাজধানীর বকশীবাজার মোড়ে দীপক শীলকে এই সাজা দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বিজ্ঞাপন

ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, সড়ক আইনের ৬৬ ধারায় দীপক শীলকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে৷ আজ সকালে মোটরসাইকেলে করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার পথে বকশীবাজার মোড় অতিক্রম করার সময় তাঁর পথরোধ করেন ম্যাজিস্ট্রেট রফিকুল হকের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত৷ দীপকের কাছে ড্রাইভিং লাইসেন্স চাওয়া হয়। কিন্তু ওই মুহূর্তে ড্রাইভিং লাইসেন্স তাঁর সঙ্গে ছিল না।

একই সময়ে আরও কয়েকজন মোটরসাইকেল আরোহী বিনা বাধায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের চৌকি অতিক্রম করলে এ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন দীপক শীল৷ দীপক নিজের রাজনৈতিক পরিচয় দেওয়ার পর মোটরযানের কাগজপত্র দেখানোর সুযোগ না দিয়েই হয়রানিমূলক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা মামলায় তাঁকে কারাগারে পাঠান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তাঁরা এ ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন