বুধবার ওই দম্পতিকে রাজশাহী নগরের শাহ মখদুম থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে ডিবির সাইবার সোশ্যাল মিডিয়া ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিম। গ্রেপ্তার দম্পতি হলেন রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী মো. রাশেদ হোসেন ও তাঁর স্ত্রী ইসলামী ব্যাংক নার্সিং কলেজের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মৌসুমী খাতুন।

পুলিশ কর্মকর্তা এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, জার্মানিভিত্তিক স্বাস্থ্যসেবামূলক প্রতিষ্ঠান ‘ইডব্লিউ ভিলা মেডিকা’র চিফ লিগ্যাল অফিসার মো. আবু সাঈদ গত ৩১ মার্চ একটি ফেসবুক আইডিতে তাঁদের প্রতিষ্ঠানের এক চিকিৎসকের নাম ও মুঠোফোন নম্বর ব্যবহার করে ভুয়া ব্যবস্থাপত্র দেখতে পান। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১১ এপ্রিল রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়।

তদন্তে নেমে ডিবির সাইবার সোশ্যাল মিডিয়া ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিম ওই দম্পতিকে শনাক্ত করে বলে জানান এ কে এম হাফিজ আক্তার। তিনি বলেন, করোনাকালে এই দম্পতি জনপ্রিয় চিকিৎসকদের নাম-পদবি ব্যবহার করে একাধিক ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলেছিলেন। তারপর প্রযুক্তির মাধ্যমে কণ্ঠ পরিবর্তন করে কখনো চিকিৎসক, কখনো সহকারী সেজে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দিতেন। তাঁরা প্রায় দুই বছর ধরে এ কাজ করছিলেন।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন