বাজারে যাওয়ার উদ্দেশে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘর থেকে বের হন নুরুল ইসলাম (৪৫)। সেদিন বাড়িতে না ফেরায় পরদিন শুক্রবার বিকেলে তাঁর স্ত্রী সীতাকুণ্ড থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এর ২৭ ঘণ্টা পর নুরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করল পুলিশ।
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের কদমরসুল পাহাড়সংলগ্ন খালের পাড় থেকে গতকাল শনিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।
পুলিশ সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে কদমরসুল বাজারে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন নুরুল ইসলাম। এরপর তাঁর কোনো খোঁজ পাচ্ছিল না পরিবার।
পুলিশ সূত্র আরও জানায়, গত বছরের ১২ ডিসেম্বর নুরুল ইসলামের মেয়ে সায়মা আক্তার বাদী হয়ে তাঁর স্বামী মো. আলাউদ্দীনসহ দুজনকে আসামি করে সীতাকুণ্ড থানায় নারী নির্যাতনের মামলা করেন। পুলিশের ধারণা, নুরুল ইসলামকে হত্যার সঙ্গে ওই ঘটনার যোগসূত্র থাকতে পারে।
সীতাকুণ্ড থানার ওসি ইফতেখার হাসান জানান, নুরুল ইসলামের মেয়ের করা মামলাসহ খুনের নেপথ্যে আর কী কারণ থাকতে পারে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন