default-image

গাজীপুরের টঙ্গীতে মোসাম্মত চাঁদনি নামের সাত বছরের এক শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে টঙ্গীর মধুমিতা লেভেল ক্রসিং এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে পুলিশের ধারণা শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

শিশুটির বাবার নাম মো. মামুন মিয়া। সে তার পরিবারের সঙ্গে টঙ্গীর আরিচপুর এলাকার বেলতলী বস্তিতে থাকত। তার বাবা গাজীপুর সিটি করপোরেশনে পরিচ্ছন্নতাকর্মীর কাজ করেন।

শিশুটির পরিবার জানায়, গতকাল শুক্রবার বেলা তিনটার দিকে চাঁদনি বাড়ির পাশে একটি মাঠে খেলতে যায়। কিন্তু এরপর দীর্ঘ সময় পার হলেও সে বাসায় ফিরছিল না। এরপর পরিবারের লোকজন তাকে খুঁজতে বের হন। তাঁরা সন্ধ্যা পর্যন্ত বাড়ির আশপাশে খোঁজাখুঁজি করেন। কিন্তু তার পরও তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। এরপর গভীর রাত পর্যন্ত মাইকিং করেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। অবশেষে আজ সকালে কয়েকজন লোক মধুমিতা লেভেল ক্রসিং এলাকায় তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে তাদের (পরিবার) খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে চাঁদনির বাবা মামুন মিয়া বলেন, ‘নিখোঁজ হওয়ার পরে বিকেল থেকে সারা রাত বাইরে খোঁজাখুঁজি করছি। কিন্তু কোথাও পাইনি। এরপর আজ সকালে কয়েকজন লোক এসে জানায় আমার মেয়ের লাশ পড়ে আছে রাস্তায়।’

পুলিশ বলছে, শিশু চাঁদনির লাশ পড়ে ছিল মধুমিতা লেভেল ক্রসিংয়ের পাশের একটি সরু গলিতে। তার গায়ে প্রচুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাদের ধারণা, শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে টঙ্গী পূর্ব থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শাহিন মোল্লা বলেন, শিশুটির লাশ দেখে প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তবে ময়নাতদন্তের পর বিষয়টি আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন