ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা–কর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। আজ শনিবার বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের ডাকা বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর যৌথবাহিনী অভিযান চালিয়ে ২৬ জনকে আটক করে।

আজ সকাল থেকেই বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নিতে বিএনপির নেতা-কর্মীরা জেলা বিএনপির কার্যালয়ে জড়ো হতে থাকেন। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে ঠাকুরগাঁওয়ের পুলিশ সুপার বিএনপির কার্যালয়ে এসে রাস্তায় মিছিল বের করতে নিষেধ করেন। তিনি বিএনপির নেতা–কর্মীদের কার্যালয়ের সামনেই বিক্ষোভ করতে বলেন।

এ সময়ই শহরের আমাদের বাজার মার্কেটের সামনে লোকজনের জটলা দেখে পুলিশের একটি দল এগিয়ে যায়। ওই জটলা থেকে বিএনপির কর্মীরা পুলিশের ওপর ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ দুইটি রাবার বুলেট ও পাঁচটি কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। এ সময় বিএনপির কর্মীরা শহরের বিভিন্ন জায়গায় তিনটি যানবাহন ভাঙচুর করেন।
পরে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে বিএনপি। সমাবেশের পর দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমানসহ কয়েকজন নেতা–কর্মীকে অবরুদ্ধ করে রাখে পুলিশ।

পরে যৌথবাহিনী বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে জেলা বিএনপির সহসভাপতি সুলতানুল ফেরদৌস নম্র চৌধুরী, সদর থানা বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেনসহ ২৬ জন নেতা-কর্মীকে আটক করে।

জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কে বা কারা পুলিশের ওপর ইট নিক্ষেপ করেছে তা বলতে পারব না। সরকারবিরোধী কর্মসূচি বন্ধ করতেই পুলিশ এমন ঘটনা ঘটিয়েছে।’ তিনি দলীয় নেতা–কর্মীদের মুক্তি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার আবদুর রহিম শাহ চৌধুরী জানান, ২০-দলীয় জোটের কর্মীরা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি অশান্ত করার চেষ্টা করেছে। আটক ব্যক্তিদের বিষয়ে যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে কোনো নিরীহ ব্যক্তিকে আইনের আওতায় নেওয়া হবে না বলে জানান তিনি।

কেরানীগঞ্জে বিক্ষোভ: মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, সারা দেশে আটক বিএনপির নেতা–কর্মীদের মুক্তি ও গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে কেরানীগঞ্জ বিএনপি। মিছিলটি কেরানীগঞ্জের কালিন্দি ইউনিয়ন বিএনপি কার্যালয় থেকে বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। বিক্ষোভ মিছিল করার আগে তাঁরা সংক্ষিপ্ত পথসভা করেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন