বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গত ২৯ মার্চ বিশ্বজিৎ ঘোষকে সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়াসহ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাবির বাংলা বিভাগের একাডেমিক কমিটি। তবে বিশ্বজিৎ ঘোষ তাঁর বিরুদ্ধে নেওয়া এসব সিদ্ধান্তকে ‘নাটকীয়তা’ বলে অভিহিত করেছেন।

বাংলাদেশ জাসদের ছাত্রসংগঠনের বিবৃতিতে বলা হয়, বিশ্বজিৎ ঘোষ বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ও একুশে পদক পেয়েছেন। কিন্তু তারা বিশ্বাস করে, দুর্জন বিদ্বান হলেও পরিত্যাজ্য। বিশ্বজিৎ ঘোষের সঙ্গে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, একুশে পদকসহ যেকোনো রকম সম্মাননাই বেমানান। তাই তাদের দাবি, অবিলম্বে বিশ্বজিৎ ঘোষের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ও একুশে পদক বাতিল করা হোক। তাঁকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনা হোক।

স্থায়ী বহিষ্কার চায় ছাত্র ফ্রন্ট

বিশ্বজিৎ ঘোষকে ‘যৌন নিপীড়নকারী’ আখ্যা দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাঁর স্থায়ী বহিষ্কার দাবি করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্ক্সবাদী)।

ছাত্রসংগঠনটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যৌন নিপীড়নের ঘটনা প্রমাণিত হওয়ার পর বিশ্বজিৎ ঘোষকে সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দিয়েছে বাংলা বিভাগ। এমন নরম পদক্ষেপ প্রমাণ করে, দেশের সমাজে নারীর বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের ঘটনাকে কতটা হালকাভাবে দেখা হয়। তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিশ্বজিৎ ঘোষের স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানাচ্ছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন