default-image

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে এক তরুণের শরীরে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আগুনে তাঁর শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। গত রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

দগ্ধ তরুণের নাম আ. রহিম রাজন (২৬)। তিনি তাবলিগ জামাতের কিশোরগঞ্জ জেলা মার্কাসের তশকিল কামরার (সদস্যদের বাইরে পাঠানো ও হিসাব রাখার দায়িত্বে থাকা) একজন সক্রিয় সদস্য। এ ঘটনায় রহিমের মামা মামুনুর রশিদ বাদী হয়ে গতকাল মঙ্গলবার কটিয়াদী থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ মাহমুদুল হাসান ও সোহেল মিয়া নামের দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে জেলা কারাগারে পাঠিয়েছে।

রহিমের পরিবার ও পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রহিমদের বাড়ি কটিয়াদী পূর্বপাড়ায়। তাঁর বাবা গোলাম মোস্তফা মারা গেছেন। গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরাও একই এলাকার। প্রায় এক যুগ আগে রহিম তাবলিগ জামাতে যোগ দেন। তাঁর মাধ্যমে অনেক তরুণ তাবলিগ জামাতের সাথি হন। বর্তমানে রহিম জেলা মার্কাসের তশকিল কামরার একজন সক্রিয় সদস্য। এক বছর আগে গ্রেপ্তারকৃতরাও রহিমের মাধ্যমে তাবলিগ জামাতে যোগ দেন। সম্প্রতি তাবলিগ জামাতের স্থানীয় নেতৃত্ব নিয়ে রহিমের সঙ্গে মাহমুদুল, সোহেলসহ আরও কয়েকজনের দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এ অবস্থায় গত রোববার সকালে পাকুন্দিয়া থেকে তাবলিগ জামাতের ২৪ সদস্যের একটি দল কটিয়াদী কলামহল জামে মসজিদে আসেন। মসজিদটি রহিম ও গ্রেপ্তারকৃতদের এলাকার। তাবলিগ সদস্যদের রহিম স্বাগত জানান এবং তাঁদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু বিষয়টি মাহমুদুল, সোহেল ও তাঁদের অনুগতদের ভালো লাগছিল না। এ দিন বাদ জোহর তাঁরা এসে বিষয়টি নিয়ে রহিমের সঙ্গে তর্কে জড়ান এবং মসজিদে আসা সদস্যদের চলে যাওয়ার তাগিদ দেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

এদিন রাতে রহিম কলামহল জামে মসজিদে তারাবিহর নামাজ আদায় করে বাড়ি ফেরেন। জামাতের সদস্যদের প্রয়োজনে রাত পৌনে ১১টার দিকে রহিম ফের মসজিদের উদ্দেশে ঘর থেকে বের হন। ঘর থেকে ৫০ গজ এগোতেই কয়েকজন এসে রহিমের শরীরে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যান। এ সময় রহিম চিৎকার করে মাটিতে গড়াগড়ি শুরু করেন। একপর্যায়ে পাশে থাকা নর্দমায় ঝাঁপিয়ে পড়েন। রাতেই রহিমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

পুলিশ সোমবার মাহমুদুল ও সোহেলকে এলাকা থেকে আটক করে।

রহিমের মামা মামুনুর রশিদ বলেন, তিনিই রহিমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নিয়ে ভর্তি করেন। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, রহিমের শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। ঢাকায় যাওয়ার পথে রহিম তাঁকে পুরো ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন। ঘটনার সময় পাঁচজন ছিলেন। সামনে–পেছনে দুই দিক দিয়ে তাঁকে ঘিরে ধরে একজন শরীরে পেট্রল ঢেলে দেন। পেছনে ফিরে তাকাতেই সামনে দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে তাঁরা পালিয়ে যান।

কটিয়াদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, তদন্তের স্বার্থে পুরো ঘটনা স্পষ্ট করা যাচ্ছে না। তবে গ্রেপ্তার হওয়া মাহমুদুল ও সোহেল এজাহারভুক্ত আসামি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0