অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ শাখার তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সাড়ে চার লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুয়া স্বাক্ষর ও চেক জালিয়াতির মাধ্যমে গ্রাহকের হিসাব থেকে এ টাকা তোলা হয় বলে জানা গেছে।
পীরগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক, জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ও ক্যাশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। ওই শাখার গ্রাহক পৌর শহরের রঘুনাথপুর এলাকার মো. আলতাফ উদ্দীন চৌধুরী এ বিষয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি অগ্রণী ব্যাংকের রংপুর সার্কেলের উপমহাব্যবস্থাপক এবং ঠাকুরগাঁও আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপকের কাছে পৃথক অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগে বলা হয়, পীরগঞ্জ শাখায় তাঁর একটি সিসি (ক্যাশ ক্রেডিট, পণ্য ঋণ) হিসাব রয়েছে। গত বছরের ১১ নভেম্বর তিনি ২০ পাতার একটি নতুন চেক বই নেন। ব্যবস্থাপকের কক্ষে বসে তাঁর পরামর্শে আলতাফ প্রতিটি চেকের পাতায় তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সিলমোহর বসান। একই সময়ে ১০ হাজার টাকা তোলার জন্য একটা চেকের পাতা সই করেন। তখন ব্যাংক ব্যবস্থাপক তাঁকে বলেন, ‘আপনি বসুন, আমি টাকা আনাচ্ছি।’ এ সময় ব্যাংকের ঝাড়ুদার মো. হারুন অর রশীদের হাতে চেক বইটি দেন। ১০ মিনিট পর ঝাড়ুদার ১০ হাজার টাকা ও চেক বইটি তাঁকে ফেরত দেন। এ বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তিনি সাত দফা ওই হিসাব থেকে প্রায় ৭৫ হাজার টাকা উত্তোলন করেন।
আলতাফ আরও বলেন, ১১ ফেব্রুয়ারি ১৫ হাজার টাকা তোলার জন্য তাঁর স্ত্রী ব্যাংকে এসে দেখেন, তাঁদের হিসাবে পর্যাপ্ত টাকা নেই। পরে তাঁরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, গত ১০ ডিসেম্বর নতুন চেক বইয়ের একটি পাতায় গ্রাহকের স্বাক্ষর জাল করে কে বা কারা সাড়ে চার লাখ টাকা তুলে নিয়েছে।
তবে শাখার ব্যবস্থাপক মো. সামশুল আলম বলেন, ‘দ্বিতীয় কর্মকর্তার টেবিলেই চেক বই ইস্যু করা হয়। অভিযোগকারী গ্রাহক দ্বিতীয় কর্মকর্তার টেবিলেই সেদিন চেক বই নেন। তিনি ওই দিন (১১ নভেম্বর) আমার চেম্বারে ঢোকেননি। এ ছাড়া ঝাড়ুদারকে ডেকে চেক বই দেওয়ার জন্য গ্রাহককে আমি কোনো পরামর্শ দিইনি।’ একইভাবে অভিযোগ অস্বীকার করেন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা (নতুন চেক বই ইস্যু) মো. গোলাম রব্বানী ও ক্যাশ কর্মকর্তা আশরাফুল হক।
ব্যাংকের ঠাকুরগাঁও আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপসহকারী মহাব্যবস্থাপক শেখ আকরাম উদ্দীন মুঠোফোনে বলেন, অভিযোগের বিষয়ে সঠিকতা যাচাইয়ের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ব্যাংকের রংপুর সার্কেলের উপমহাব্যবস্থাপক সেলিনা আকতার বলেন, লিখিত অভিযোগ তদন্তে ইতিমধ্যে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে যথাযথভাবে তদন্ত করা হবে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন