কুমিল্লা নগরের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কালিয়াজুড়ি এলাকায় তাকওয়া আক্তার (২৬) নামের এক গৃহবধূ খুন হয়েছেন।
গত শনিবার রাতে গৃহবধূর বাসার বক্সখাটের ভেতর থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। গত বৃহস্পতিবার থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন।
তাকওয়া কুমিল্লা রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকার (ইপিজেড) কাদেনা ফুটওয়্যার লিমিটেড কারখানার শ্রমিক ছিলেন। তাঁর তানহা আক্তার (৫) ও তানভীর হোসেন (৩) নামের দুই সন্তান রয়েছে। স্বামী দুলাল মিয়া চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যান চালান। স্ত্রী নিখোঁজের খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতেই তিনি কুমিল্লায় আসেন। নিহত তাকওয়া দুলাভাই ও বড় বোনের সঙ্গে কালিয়াজুড়িতে ভাড়া বাসায় থাকতেন। এ ঘটনায় দুলাল অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় হত্যা মামলা করেছেন।
নিহত ব্যক্তির স্বামী ও পরিবারের একাধিক সদস্য বলেন, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকওয়া বাসা থেকে নিখোঁজ হন। গত শনিবার সন্ধ্যায় তাকওয়ার শোয়ার ঘর থেকে দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকলে তল্লাশি চালিয়ে বক্সখাট খুলে এর ভেতরে লাশটি পাওয়া যায়। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।
তাকওয়ার দুলাভাই আতিকুর রহমান বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার সকালে আমি ও আমার স্ত্রী একটি দাওয়াতে যাই। বিকেলে প্রতিবেশীদের কাছ থেকে ফোন পেয়ে আমরা ছুটে এসে দেখি তানহা, তানভীর কানতেছে। ওদের কাছ থেকে জানতে পেরেছি, বাসায় একজন লোক এসে দুই বাচ্চাকে চিপস কেনার টাকা দিয়ে দোকানে পাঠায়। পরে বাসায় ফিরে ওরা আর কাউকে না দেখে কান্নাকাটি করলে আশপাশের লোকজন আসে।’
থানার এসআই মফিজ উদ্দীন বলেন, বক্সখাটের ভেতর থেকে উদ্ধার করা গৃহবধূর লাশের শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন ছিল। এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। ঘটনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন