কুমিল্লার দেবীদ্বার পৌরসভার দক্ষিণ ভিংলাবাড়ি এলাকার একটি শৌচাগার থেকে হাজেরা বেগম (৪৮) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার সকাল আটটায় লাশটি উদ্ধার করা হয়।
নিহত গৃহবধূর গলা ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন এবং নাকে রক্তের দাগ রয়েছে। লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। হাজেরা ওই এলাকার পোলট্রি ব্যবসায়ী মো. শাহ আলমের স্ত্রী। তিনি উত্তর ভিংলাবাড়ি গ্রামের প্রয়াত করিম মিয়ার মেয়ে। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকালে দক্ষিণ ভিংলাবাড়ি এলাকার কয়েক ব্যক্তি প্রতিবেশীর বাড়ির শৌচাগারে লাশ দেখে চিত্কার করেন। খবর পেয়ে বাড়ির লোকজন জড়ো হন। এরপর পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।
পুলিশ নিহত গৃহবধূর সুরতহাল প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, হাজেরা বেগমের গলা ও ঊরুতে আঘাতের চিহ্ন এবং নাকের ওপরের অংশে রক্তের দাগ রয়েছে। তবে শরীরে রক্ত বের হওয়ার মতো কোনো ক্ষত বা জখম দেখা যায়নি।
নিহত হাজেরার স্বামী দক্ষিণ ভিংলাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা শাহ আলম বলেন, ‘ঘটনার রাতে পাশের মরিচাকান্দা গ্রামে পোলট্রি খামারে ছিলাম। কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে, আমি কিছুই বলতে পারছি না।’
দেবীদ্বার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাইদুর রহমান জানান, ধারণা করা হচ্ছে, কোনো কারণে অজ্ঞাতনামা কেউ হাজেরাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে কি না বা ধর্ষণের কোনো আলামত আছে কি না, তা ময়নাতদন্ত ও ডিএনএ পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়ার পরই নিশ্চিত করে বলা যাবে।
দেবীদ্বার থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান বলেন, এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এটি হত্যা না অন্য কিছু, তা তদন্ত করে বের করা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন