ধরমপাশায় প্রকৌশলীকে হুমকি, ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জিডি

বিজ্ঞাপন
default-image

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সুনামগঞ্জের ধরমপাশা উপজেলার অস্থায়ী কার্যালয়ে ঢুকে এক প্রকৌশলীকে গালাগাল ও তাঁকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন ভুক্তভোগী উপসহকারী প্রকৌশলী মাহমুদুল ইসলাম। এতে উপজেলার চামরদানী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জাকিরুল আজাদ ওরফে মান্নার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন, প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চন্দ্র সোনার থাল, জয়ধনা, ধানকুনিয়া, সোনামড়ল, কাইলানী, ঘোড়াডোবা, গুরমা ও গুরমার বর্ধিতাংশ—এই আট হাওর সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে। এখানে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) আছে ১৫৯টি। এর মধ্যে গুরমা হাওরে ২৯টি ও কাইলানী হাওরে ১৭টি পিআইসি আছে। এসব পিআইসি থেকে চারটি পিআইসি পরিবর্তন করার জন্য গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলা সদরে হাসপাতাল রোডের থাকা পাউবোর ধরমপাশার অস্থায়ী কার্যালয়ে যান উপজেলার চামরদানীর ইউপির চেয়ারম্যান জাকিরুল আজাদ ওরফে মান্না। চেয়ারম্যান উপসহকারী প্রকৌশলী মাহমুদুল ইসলামের সঙ্গে অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করলে সেখানে থাকা লোকজনদের সহায়তায় ওই চেয়ারম্যান তাৎক্ষণিকভাবে কার্যালয় ত্যাগ করতে বাধ্য হন। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে উপসহকারী প্রকৌশলী মাহমুদুল ইসলাম ধরমপাশার অস্থায়ী কার্যালয়ে বসে দাপ্তরিক কাজ করছিলেন। এ সময় ইউপির চেয়ারম্যান ওই কার্যালয়ে ঢুকে প্রথমে গুরমা ও কাইলানী হাওরে চারটি পিআইসি পরিবর্তনের জন্য ওই কর্মকর্তাকে মৌখিকভাবে নির্দেশ দেন। ওই কর্মকর্তা এ নিয়ে উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্ত লাগবে বলে জানান। এতে ইউপির চেয়ারম্যান উত্তেজিত হয়ে ওই উপসহকারী প্রকৌশলীকে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ শুরু করেন এবং একপর্যায়ে তাঁকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে সেখান থেকে চলে যান। এ ঘটনায় রাতেই ওই উপসহকারী প্রকৌশলী ইউপির চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে ধরমপাশা থানায় একটি জিডি করেন।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী এবং ধরমপাশায় হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ, মেরামত প্রকল্প বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণ কমিটির সদস্যসচিব মাহমুদুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সাতজন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। জিডির পাশাপাশি ঘটনাটি ইউএনও স্যার ও পাউবোর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।’

অভিযোগের বিষয়ে চামরদানী ইউপির চেয়ারম্যান জাকিরুল বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো সঠিক নয়। এই ইউনিয়নে পিআইসি গঠন করা নিয়ে নীতিমালা লঙ্ঘন করা হয়েছে। এখানকার গুরমা ও কাইলনা হাওরে চারটি পিআইসি গঠন নিয়ে অনিয়ম থাকায় আমি এগুলো পরিবর্তনের জন্য তাঁকে সুপারিশ করেছিলাম। ওই কর্মকর্তাকে গালিগালাজ ও তাঁকে দেখে নেওয়ার জন্য আমি কোনো হুমকি দিইনি। জিডির কথা শুনে আমি নিজেই হতবাক হয়েছি।’

ধরমপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এজাজুল ইসলাম বলেন, পাউবোর এক উপসহকারী প্রকৌশলীকে গালাগাল করায় ও তাঁকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় থানায় একটি জিডি হয়েছে। তদন্ত করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন