মৌলভীবাজারে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে শিশুর মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকা ধর্মঘট চলাকালে ওই অ্যাম্বুলেন্সকে বাধা দেয় শ্রমিকেরা।

রোববার বিকেলে বড়লেখা উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাত দিনের কন্যাশিশুটির বাবা বড়লেখা সদর ইউনিয়নের আজমির গ্রামের কুটন মিয়া।

শিশুটির চাচা আকবর আলী বলেন, ‘শনিবার রাত থেকে আমার ভাতিজি কিছুই খাচ্ছিল না, শুধু কাঁদছিল। রোববার সকালে আমরা তাকে বড়লেখা উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যাই। পরে হাসপাতালের চিকিৎসকেরা তাঁকে সিলেট নেওয়ার পরামর্শ দেন। চিকিৎসকদের কথামতো আমরা তাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওনা দেই।’

পথে পথে তাঁদের অ্যাম্বুলেন্সটিকে পরিবহন শ্রমিকেরা বাধা দেন অভিযোগ করে আকবর বলেন, ‘সিলেট যাওয়ার পথে বড়লেখা উপজেলার দরগাবাজারে অ্যাম্বুলেন্সটি আটকে দেয় আন্দোলনরত পরিবহন শ্রমিকেরা। কিছুক্ষণ পর ছেড়ে দেয়। একইভাবে দাসেরবাজার এলাকায় আটকানোর পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। সেখান থেকে ছাড়া পেয়ে চান্দগ্রাম বাজারে আবারও শ্রমিকেরা গাড়িটি আটকায়। এ সময় অ্যাম্বুলেন্স চালককে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর করা হয়। শিশুটি তখন একেবারেই নিস্তেজ হয়ে পড়ে। পথিমধ্যে তাকে বিয়ানীবাজার হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইয়াসিনুল হক বলেন, ‘ঘটনা শুনেছি। তবে কেউ এ ব্যাপারে এখনো কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

উল্লেখ্য, সড়ক পরিবহন আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধন ও আট দফা দাবি আদায়ে রোববার সকাল ৬টা থেকে দেশব্যাপী বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ধর্মঘট চলছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0