default-image

গাজীপুরের শ্রীপুরে ১৩ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে এক কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে আজ বুধবার শ্রীপুর থানায় মামলাটি করেন। মামলায় দুই কিশোরকে আসামি করা হয়।

পুলিশ সূত্র জানায়, ওই কিশোরী স্থানীয় একটি মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। আসামি দুই কিশোরের একজনের বয়স ১৪, অপরজনের ১৫।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আলাউদ্দিন প্রথম আলোকে টেলিফোনে জানান, ১১ মে দুপুর ১২টার দিকে ১৪ বছর বয়সী এক কিশোর জোর করে ওই কিশোরীকে জোর করে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে ১৫ বছর বয়সী অপর এক কিশোর বন্ধুর সহায়তায় ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। এ সময় তাদের মধ্যে একজন ছবি ও ভিডিও ধারণ করে রাখে। এ ঘটনার পর কোনো পক্ষই এ নিয়ে কোথাও কোনো অভিযোগ করেনি। কিন্তু গতকাল মঙ্গলবার ১৪ বছর বয়সী ওই কিশোরের ফেসবুক আইডি থেকে ওই মেয়ের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনার কিছু আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও শেয়ার করা হয়।

এ খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে ওই ছাত্রী ও তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ। এ ঘটনায় শ্রীপুর থানায় মামলা করেন নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর বাবা। মামলায় দুজনকে আসামি করা হয়। তাদের মধ্যে ১৪ বছরের কিশোরকে শ্রীপুরের বরমী থেকে আজ দুপুরে গ্রেপ্তার করা হয়। তাকে কোর্টে পাঠানো পাঠানো হবে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী আজ রাতে প্রথম আলোকে বলেন, কিশোরীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হবে। প্রকাশিত ভিডিওটি আলামত হিসেবে সহযোগিতা করবে। মূল আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0