বগুড়ার ধুনটের এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা শামছুল হককে (৪৫) দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে রাস্তার পাশে ধানখেতে লাশ ফেলে গেছে। আজ সোমবার সকাল নয়টার দিকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। এ ঘটনায় এক গৃহবধূকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান এম এ তারেকের দাবি, শামছুল হক এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ছিলেন। জমিজমা নিয়ে একই গ্রামের প্রতিপক্ষের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তাঁর বিরোধ চলে আসছিল। পূর্ববিরোধের জেরে তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে তাঁর ধারণা।

স্থানীয়রা জানায়, শামছুল হক গতকাল রোববার রাত ১২টার দিকে রাঙ্গামাটিতে তাঁর পুরোনো বাড়ি থেকে নতুন বাড়ি রাঙ্গামাটির ভিটাপাড়া গ্রামে যাচ্ছিলেন। গন্তব্য থেকে আধা কিলোমিটার দূরে তাঁকে হত্যা করা হয়। পরে তাঁর লাশ রাস্তার পাশে ধানখেতের মধ্যে ফেলে যায় দুর্বৃত্তরা।

এ ব্যাপারে ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমান বলেন, গভীর রাতে শামছুল হক বাড়ি ফিরছিলেন। ফাঁকা রাস্তায় দুর্বৃত্তরা তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং গলা কেটে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের প্রতিবেশী জোসনা (৪০) নামের এক গৃহবধূকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আজ সকাল সাড়ে নয়টার দিকে আটক করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন