মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষায় নকল সরবরাহের অভিযোগে এক শিক্ষককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইফুর রহমান খান ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক হিসেবে গতকাল শুক্রবার এ রায় দেন।
বগুড়ার দুপচাঁচিয়া দারুস সুন্নাহ ফাজিল মাদ্রাসা (ডিএস) কেন্দ্রের কক্ষপরিদর্শক আবু রায়হানকে এ শাস্তি দেওয়া হয়েছে। আবু রায়হান উপজেলার দেবখন্ড সিদ্দিকীয়া সিনিয়র মাদ্রাসার সহকারী মাওলানা পদে চাকরি করেন।
পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব অধ্যক্ষ আবু বক্কর ছিদ্দিক জানান, ইংরেজি দ্বিতীয়পত্র বিষয়ের পরীক্ষা চলাকালে আবু রায়হান নয় নম্বর কক্ষে পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন। ওই কক্ষ থেকে নকল নিয়ে পাশের কক্ষে তাঁরই মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থীকে দেওয়ার সময় পর্যবেক্ষক দলের সদস্য উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা জ্যোতিষ চন্দ্র প্রামাণিক তাঁকে আটক করেন। পরে ইউএনও আদালত বসিয়ে ওই শিক্ষককে দণ্ড দেন।
দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোপালচন্দ্র চক্রবর্তী জানান, পরে দেবখন্ড সিদ্দিকীয়া সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফজলুর রহমান এবং ওই শিক্ষকের পরিবারের লোকজন ২০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে তাঁকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নেন।
এ ব্যাপারে ইউএনও সাইফুর রহমান খান বলেন, নকল সরবরাহের দায়ে ওই শিক্ষককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন